“পেট্রোল-ডিজেলের ট্যাক্সের টাকা কোথায় ব্যবহার করা হয়?”- জানালেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নীতিন গড়করি

“পেট্রোল-ডিজেলের ট্যাক্সের টাকা কোথায় ব্যবহার করা হয়?”- জানালেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নীতিন গড়করি

নিজস্ব প্রতিবেদন: কেন্দ্রীয় সরকার পেট্রোল এবং ডিজেলের উপর থেকে নিয়ন্ত্রণ তুলে নিয়েছিল আগেই। গত বছর জুন মাসে বিশ্ববাজারে অপরিশোধিত তেলের দাম কমেছিলো প্রতি ব্যারেলে ৩৫ টাকা। তখনও আমাদের দেশে পেট্রোল ডিজেলের দাম বৃদ্ধি পেয়েছিলো। এই দাম বেড়েছে কেন্দ্রের আন্তঃশুল্ক এবং রাজ্য সরকারের ট্যাক্সের দরুন ।

২০১৪ সালে পেট্রোলের বেস প্রাইস ছিলো ৪৭.১২ টাকা, সেই সাথে কেন্দ্রের কর ছিলো ১০.৩৯ টাকা। ডিলারদের ট্যাক্স ছিল ২ টাকা। সেইসাথে রাজ্যের কর ছিলো ১১.৯ টাকা। তখন পেট্রোলের লিটার প্রতি মোট মূল্য ছিল ৭১.৪১ টাকা।

আরও পড়ুন-“১৯৩০ সাল থেকেই মুসলিমদের সংখ্যা বাড়ানোর প্রবল চেষ্টা করা হচ্ছে”- মন্তব্য আর‌এস‌এস প্রধান মোহন ভাগবতের

বর্তমানে ১৬ ই মে ২০২১ এর হিসাবে পেট্রোলের লিটার প্রতি বেস প্রাইস হয়েছে ৩৪.১৯ টাকা, সেখানে কেন্দ্র কর চাপাচ্ছে ৩২.৯ টাকা। ডিলারদের ট্যাক্স হয়েছে ৩.৭৭ টাকা। রাজ্যের কর হচ্ছে ২১.৩৬ টাকা। যার দরুন পেট্রোলের লিটার প্রতি দাম হয়েছিল ৯২.৫৮ টাকা।

যার দরুণ অপরিশোধিত তেলের দাম কমলেও কেন্দ্রীয় সরকার এবং রাজ্য সরকারের অতিরিক্ত ট্যাক্সের দরুণ দাম বেড়েছে জ্বালানির।
এই আবহে লোকসভার বাদল অধিবেশনে কেন্দ্রীয় সরকারকে কড়া আক্রমণ করছে বিরোধী দলগুলি।এবার পেট্রোল এবং ডিজেলে প্রাপ্ত ট্যাক্সের টাকা ভারতের কি কি খাতে ব্যয় করা হচ্ছে সেই বিষয়ে জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহনমন্ত্রী নীতিন গড়করি। লোকসভায় তিনি জানিয়েছেন যে পেট্রোল, ডিজেলের ট্যাক্সের সমস্ত টাকাগুলি অন্যান্য উন্নয়নমূলক কাজে এবং ভারতের বিভিন্ন ধরনের উন্নয়নের প্রকল্পে ব্যবহৃত হচ্ছে।

আরও পড়ুন-“আধুনিক ভারতে হিন্দুত্ববাদের কোন জায়গা নেই”- বললেন আসাউদ্দিন

লোকসভায় বিরোধী দল কেন্দ্রকে এই জ্বালানির মহার্ঘ্য মূল্য সম্পর্কে প্রশ্ন করায় নীতিন গড়করি বলেছেন, “মোট পরিবহন ব্যয়ে পেট্রোল-ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রভাব পড়েছে প্রায় ৩৪% । সরকারি কর্মচারীদের বেতন থেকে শুরু করে দেশের পারমিট ট্যাক্স, রক্ষণাবেক্ষণ, টোল ট্যাক্স, যানবাহন কেনার জন্য, বীমা, জ্বালানি প্রভৃতির জন্য বহু অর্থ ব্যয় করা হয়। এই সমস্ত অর্থ ব্যায় করার জন্য যে টাকা কেন্দ্রকে জোগাড় করতে হয় সেটার অনেকটাই পেট্রোল ডিজেল থেকে আসে।”