নিউজপলিটিক্স

“তৃণমূলের পাশে আসতে চাইলে স্বাগত”- ত্রিপুরায় সিপিএমকে বার্তা দিলেন ব্রাত্য বসু

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটে বাংলার মাটিতে ক্ষমতা দখলের পর ত্রিপুরার পাখির চোখ এবার আগামী ২০২৩ এর ত্রিপুরার বিধানসভা নির্বাচনে ত্রিপুরার ক্ষমতা দখল। বর্তমানে ত্রিপুর বিপ্লব দেবের সরকারকে পর্যুদস্ত করে ত্রিপুরার মাটিতে জোড়াফুল প্রস্ফূটিত করতে বদ্ধপরিকর তৃণমূল কংগ্রেস। গত শনিবার ত্রিপুরার মাটিতে আক্রান্ত হয়েছিলেন তৃণমূলের যুবনেতা দেবাংশু ভট্টাচার্য, সুদীপ রাহা, জয়া দত্ত সহ তৃণমূলের বেশ কিছু কর্মী সমর্থকরা।

আজ আবার ত্রিপুরার মাটিতে র‌ওনা দিয়েছেন তৃণমূলের সাংসদ অর্পিতা ঘোষ, কাকলি ঘোষ দস্তিদার, দোলা সেন এবং প্রতিমা মন্ডল, অপরূপা পোদ্দার, প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়, আবু তাহের খান, দোলা সেন। দোলা সেন, কয়েকদিন আগেই কুণাল ঘোষ, ব্রাত্য বসুর সাথে গিয়েছিলেন।

আরও পড়ুন –আদালতে হাজিরা পরীমনির। দোষী প্রমাণিত হলে সর্বোচ্চ ৫ বছরের কারাদন্ড। জামিনের আবেদন আইনজীবীর

এই পরিস্থিতিতে তৃণমূলের এই সাংসদদের ত্রিপুরা র‌ওনা হ‌ওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। এই আবহের মধ্যে ত্রিপুরার বাম নেতাদের উদ্দেশ্যে বার্তা দিলেন তৃণমূল মন্ত্রী ব্রাত্য বসু। তিনি আজ বলেছেন, “ত্রিপুরার বাম নেতাদের চরিত্রগত বৈশিষ্ট্য বাংলার বাম নেতাদের থেকে অনেকটাই আলাদা। ত্রিপুরার বাম নেতারা অনেকটাই বাস্তববাদী এবং তারা গ্রাউন্ড রিয়েলিটি সম্পর্কে ধারণা রাখেন।

তারা সকলেই বুঝতে পারছেন যে বিজেপির মত বৃহত্তর একটা সাংগঠনিক ক্ষমতার মোকাবিলা করতে পারে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাই যদি কেউ আমাদের সাথে দাঁড়াতে চান তাঁরা স্বাগত।”

তবে এই প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী বলেছেন, বাম নেতাদের সঙ্গে জোট সম্পন্ন হবে না, তাঁরা যদি আমাদের সাথে থাকতে চায় তাহলে তাঁদের আমরা স্বাগত জানাচ্ছি। এদিকে বাম নেতা সীতারাম ইয়েচুরি বলেছেন, ত্রিপুরার মাটি সংক্রান্ত কোনো বিষয়ে এখনও বাম দল কিছু চিন্তা ভাবনা করেনি।

Related Articles

Back to top button