নিউজপলিটিক্স

“আমরা উত্তরপ্রদেশে ৪০০ টি আসন পাবো”- সরাসরি চ্যালেঞ্জ করলেন সমাজবাদী পার্টির প্রধান অখিলেশ যাদব

নিজস্ব প্রতিবেদন: গতকাল উত্তরপ্রদেশের বুকে সমাজবাদী পার্টি সাইকেল র‌্যালি করেছে। এই র‌্যালিতে স্লোগান উঠেছে, “উত্তরপ্রদেশের জনাদেশ আসছে অখিলেশ।”এই সাইকেল যাত্রা করার আগে উত্তর প্রদেশের রাজধানী লক্ষ্ণৌতে একটি সাংবাদিক বৈঠকে অংশগ্রহণ করেছিলেন সমাজবাদী পার্টির প্রধান নেতা অখিলেশ যাদব। উক্ত বৈঠকে তিনি প্রথমেই ভারতীয় হকি টিমকে অলিম্পিকে ব্রোঞ্জ জয় করার জন্য অসংখ্য শুভেচ্ছা জানান।

এরপরই তিনি সরাসরি উত্তর প্রদেশের বিজেপির ওপর আক্রমণ শানিয়ে বলেছেন যে,”আমি আগেই মন্তব্য করেছিলাম যে উত্তরপ্রদেশে আমরা অন্তত সাড়ে ৩০০ টি আসন পেয়ে জয়লাভ করতে পারি । কিন্তু বর্তমানে বিজেপির প্রতি মানুষের ক্ষোভ যেভাবে পুঞ্জীভূত হয়েছে, তাতেই আমার দৃঢ় ধারণা যে আমরা আগামী বিধানসভা ভোটে ৪০০ র থেকেও অধিক আসনে জিতবো। উত্তর প্রদেশের সরকার করোনার ভয়াবহ পরিস্থিতিতে মানুষের কাছে অক্সিজেন পৌঁছে দিতে ব্যর্থ হয়েছে আর এই ব্যর্থতার জন্য বহু প্রাণ অকালে ঝরে গিয়েছে। ‌ বর্তমানে উত্তরপ্রদেশের মানুষের উপরে যথেষ্ট অন্যায় অত্যাচার চালাচ্ছে বিজেপি এবং আরএসএস।

আরও পড়ুন-রাহুল গান্ধীর বিরুদ্ধে দায়ের হল পকসো ধারায় মামলা। অস্বস্তিতে কংগ্রেস।

যার জন্য মানুষের ক্ষোভ সরকারের বিরুদ্ধে চরম সীমায় পৌঁছেছে।”এছাড়াও অখিলেশ যাদব বিজেপির বিরুদ্ধে আক্রমণ শানিয়ে বলেছেন,”বিরোধীদের যে পরিস্থিতি দেখছি ওরা আগামী দিনে ওদের প্রার্থী কিছুতেই খুঁজে পাবেনা । যার ফলে বিজেপির টিকিটে হাত দেবেনা প্রার্থীরা। একটা সময় বিজেপি বারবার মন্তব্য করতো যে তারা অপরাধীদের প্রশ্রয় দেবে না এবং অপরাধীদের থেকে দূরত্ব বজায় রাখবে।

আরও পড়ুন-“ভারত বাঁচাতে দিদিকে আমরা চাই।”- এবার বামেদের গড় কেরালা’তে নতুন করে যাত্রা শুরু করল তৃণমূল কংগ্রেস।

কিন্তু বর্তমানে বিজেপির নির্দেশেই বহু অপরাধীরা দলে দলে বিজেপিতে যোগদান করছে। যার ফলে দিন দিন বিজেপিতে অপরাধীদের সংখ্যা বৃদ্ধি হয়েছে। করোনা পরিস্থিতি সামাল দিতে বিজেপি সরকার উত্তরপ্রদেশে কিভাবে ব্যর্থতার মুখ দেখেছে তা সকলেই বুঝতে পারছেন বিলক্ষণ। করোনার ভয়াবহ পরিস্থিতিতে দেখা গিয়েছে করোনায় দেহ ভেসে এসেছে, গঙ্গার পাড়ে চিতা জ্বালানো হয়েছে, মৃতদেহ কবর দেওয়া হয়েছে।

মানুষ এগুলো নিজের চোখে দেখতে পেয়েছে। এদিকে কেন্দ্রীয় সরকার নিজের ব্যর্থতা লুকিয়ে রাখতে বিভিন্ন ভাবে সচেষ্ট হয়ে চলেছে।”

Related Articles

Back to top button