“অবসরপ্রাপ্ত আমলাদের পুনর্নিয়োগের বাধ্যতামূলক হবে ভিজিল্যান্সের ছাড়পত্র।”- জারি হল নির্দেশিকা।

“অবসরপ্রাপ্ত আমলাদের পুনর্নিয়োগের বাধ্যতামূলক হবে ভিজিল্যান্সের ছাড়পত্র।”- জারি হল নির্দেশিকা।

নিজস্ব প্রতিবেদন: আলাপন ইস্যুতে যথেষ্ট সরগরম রাজ্যের রাজনৈতিক পরিস্থিতি। আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে ঘিরে চরমে উঠেছে কেন্দ্র-রাজ্য সংঘাত। গত মে মাসের ২৭ তারিখে প্রধানমন্ত্রী বাংলা এবং ওড়িশার ইয়াস বিধ্বস্ত এলাকা পরিদর্শনে এসেছিলেন। কলাইকুন্ডায় মুখ্যমন্ত্রীর সাথে বৈঠক হওয়ার কথা ছিল প্রধানমন্ত্রীর। কিন্তু ওই বৈঠকে বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী উপস্থিত থাকার দরুন মুখ্যমন্ত্রী ওই বৈঠকে অংশগ্রহণ করেননি।

এর সাথে যুক্ত হন আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়।তৎকালীন রাজ্যের মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় এই বৈঠকে উপস্থিত না হয় তাঁর পদের অমর্যাদা করেছেন এবং শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেছেন বলে অভিযোগ তোলে কেন্দ্রীয় সরকার যার দরুন তাঁকে শোকজ নোটিশ পাঠায় কেন্দ্র।তিন দিনের মধ্যে এই নোটিশের জবাব দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল কেন্দ্র। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যাবেলা ই মেইল করে কেন্দ্রের শোকজের জবাব দিয়েছেন আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়

আরও পড়ুন-পশ্চিমবঙ্গে টীকার শংসাপত্র মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি।

এবার সেন্ট্রাল ভিজিল্যান্স কমিশন একটি নতুন নির্দেশিকা জারি করে জানিয়েছে, “অবসরপ্রাপ্ত আমলাদের পুনর্নিয়োগ অথবা চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ করার ক্ষেত্রে আবশ্যিক হবে ভিজিল্যান্স কমিশনের ছাড়পত্র। এই ছাড়পত্র পেলে তবেই আমলাদের পুনর্নিয়োগ করা যাবে।”ভিজিল্যান্সের এই নির্দেশিকা পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে সব কটি রাজ্য সরকার এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল গুলিকে।

আরও পড়ুন-“এক আধজন চলে গেলে যেতেই পারেন।”- মুকুল ইস্যুতে দিলীপের মন্তব্য নিয়ে চাঞ্চল্য রাজ্য রাজনীতিতে।

অল ইন্ডিয়া সার্ভিস ক্যাডার অফিসারের অবসর গ্রহণের পরেই সেই অফিসারকে কোন রাজ্য সরকার যদি নিয়োগ করতে চায় তাহলে সর্বপ্রথমে সেন্ট্রাল ভিজিল্যান্স কমিশনকে এই বিষয়টি জানাতে হবে।সমস্ত তথ্য বিস্তারিত ভাবে ভিজিল্যান্সকে জানাতে হবে। সার্ভিস চলাকালীন ওই অফিসার স্বচ্ছ্বতা বজায় রেখে কাজ করেছেন কি না, তিনি কোনোরকম বিতর্কে জড়িয়েছিলেন কি না, সেই সমস্ত বিষয় দেখে তবেই ছাড়পত্র দেবে ভিজিল্যান্স কমিশন।

আবার অনেকক্ষেত্রে অফিসারের সার্ভিস পিরিয়ডে স্বচ্ছ্বতা না থাকলে রাজ্যকে এই ছাড়পত্র নাও দিতে পারে সেন্ট্রেল ভিজিল্যান্স কমিশন। এছাড়াও ওই অফিসার যদি অন্য কোনো দপ্তরে কাজ করে থাকেন, সেখান থেকেও নিতে হবে এই ছাড়পত্র। সেন্ট্রাল ভিজিল্যান্স কমিশন জানিয়েছে , অফিসারদের অবসর গ্রহণ করার পর কুলিং অফ ডিউটির সময় সীমা করা হয়েছে ১ বছর।