“প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে দেশে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ নিয়ন্ত্রণে এসেছে।”- প্রধানমন্ত্রীকে আগাম সার্টিফিকেট দিলেন অমিত শাহ।

“প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে দেশে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ নিয়ন্ত্রণে এসেছে।”- প্রধানমন্ত্রীকে আগাম সার্টিফিকেট দিলেন অমিত শাহ।

নিজস্ব প্রতিবেদন: সারা ভারত জুড়ে রীতিমতো তাণ্ডব চালাচ্ছে করোনা ভাইরাস। এই ভাইরাসের কবলে পড়ে প্রাণহানি ঘটছে বহু মানুষের। এখনো পর্যন্ত সারা ভারতের বুকে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন মোট ২ কোটি ৮৬ লক্ষ ৯৪ হাজার ৮৭৯ জন। মৃত্যু হয়েছে ৩ লক্ষ ৪৪ হাজার ১০১ জনের। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২ কোটি ৬৭ লক্ষ ৯৫ হাজার ৫৪৯ জন।

সারা ভারত জুড়ে এখনো অর্ধেক মানুষকেও টীকা দেওয়া সম্ভব হয়নি।গুজরাটে গতকাল নয়টি অক্সিজেন প্ল্যান্টের উদ্বোধন করে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দাবি করেছেন করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের ধাক্কা সামলাতে যথেষ্ট সফল হয়েছে ভারত। তাঁর এই আগাম যুদ্ধজয়ের ঘোষণায় কিছুটা চিন্তা বাড়িয়েছে বিজ্ঞানীদের। ‌

আরও পড়ুন-শুভেন্দু অধিকারীকে বিরোধী নেতা মানতে রাজী নন দলের‌ই ৩৪ জন বিধায়ক।

বিজ্ঞানীরা বলছেন সারাদেশে দৈনিক সংক্রমণ প্রায় দেড় লক্ষ। ভাইরাস যখন তখন তার চরিত্র পরিবর্তন করছে। এই পরিস্থিতিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ঘোষণা কিছুটা বিপদ বাড়িয়ে দিতে পারে।একদিকে ভারতের বিভিন্ন জায়গায় দেখা গিয়েছে অক্সিজেনের অভাব, বেডের অভাব। সেই পরিস্থিতিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এই ঘোষণায় সিঁদুরে মেঘ দেখছেন বিজ্ঞানীরা।

আরও পড়ুন-মুকুল রায়ের স্ত্রীকে হাসপাতালে দেখতে গেলেন লকেট। ছিলেন না মুকুল, শুভ্রাংশু।

এর ফলে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ এর বিরুদ্ধে লড়াই করার প্রক্রিয়া অনেকটাই আঘাতপ্রাপ্ত হবে বলে ধারণা বিজ্ঞানীদের। এখনো বহু মানুষের মধ্যে এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে দৃঢ় সচেতনতা গড়ে তোলা যায়নি।গতকাল গুজরাটে নয়টি হাসপাতালে অক্সিজেন প্ল্যান্টের শিলান্যাস করেছেন অমিত শাহ।তারপরেই অমিত শাহ বলেছেন, “অক্সিজেনের চাহিদা ১০ হাজার টন থেকে কমে ৩৫০০ টনে নেমে এসেছে ।

আরও পড়ুন-যে এসডিএমের নির্দেশে ভেঙে ফেলা হয়েছে অবৈধ মসজিদ , তাকেই পুরস্কৃত করলো যোগী প্রশাসন।

এর ফলে প্রমাণ পাওয়া যাচ্ছে যে দেশে করোনার এই সংক্রমণ অনেকটাই হ্রাস পেয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর দক্ষ নেতৃত্বে ভারত করোনার এই দ্বিতীয় ঢেউয়ের ধাক্কার বিপর্যয় অনেকটাই কাটিয়ে উঠতে পেরেছে। যেখানে পৃথিবীর উন্নত দেশগুলি এই ভাইরাসের মোকাবিলায় যথেষ্ট বিপর্যস্ত হয়েছে সেখানে ভারতের সুদক্ষ পরিকল্পনা ভারতকে এই ভাইরাসের মোকাবিলায় অনেকটাই সাফল্য এনে দিয়েছে।”