বঙ্গ বিভাজনের দাবিতে জন বারলার হাত ধরলেন আরো দুই বিজেপি বিধায়ক।

বঙ্গ বিভাজনের দাবিতে জন বারলার হাত ধরলেন আরো দুই বিজেপি বিধায়ক।

নিজস্ব প্রতিবেদন: বঙ্গ বিভাজনের অভিযোগে নিরন্তর বিদ্ধ হচ্ছে বিজেপি। উত্তরবঙ্গের আলিপুরদুয়ারের বিজেপি সাংসদ জন বারলা পৃথক উত্তরবঙ্গের দাবিতে সরব হয়েছেন। তিনি বলেছেন “উত্তরবঙ্গের মানুষকে চিরটা কাল তৃণমূল সরকার বঞ্চিত করে এসেছে। তাই উত্তরবঙ্গ কে আলাদা রাজ্য রূপে গড়ে তুললে উত্তরবঙ্গের মানুষ সুখ-সমৃদ্ধির দেখা পাবেন।”

এই মন্তব্যে যথেষ্ট চাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে বাংলার রাজ্য রাজনীতিতে। ‌ বিজেপির নেতারা জন বারলার এই দাবী সমর্থন না করলেও তাঁরা সকলেই একমত যে তৃণমূল সরকার উত্তরবঙ্গের মানুষের সাথে কেবলমাত্র বঞ্চনাই করে এসেছে।জন বারলার এই মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে তার বিরুদ্ধে দিনহাটা থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে তৃণমূল। জনের এই মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে মুখে কুলুপ এঁটে রয়েছে বিজেপিও।

আরও পড়ুন-“কালো কুকুর চিৎকার করে।”- ধনখড়কে তীব্র কটাক্ষ মদন মিত্রের।

এই আবহে ঠিক এরকমই একটি মন্তব্য করে বিজেপির অস্বস্তির আগুনে ঘি ঢেলেছেন বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ। জন বারলার মতো তিনিও এবার রাঢ়বঙ্গকে ভেঙে আলাদা রাজ্যের প্রসঙ্গ উত্থাপন করেছেন।এরপরে বিজেপির অস্বস্তি আরো কয়েকগুণ বাড়িয়ে জন বারলার হাত ধরলেন উত্তরবঙ্গের আরো দুই বিজেপি বিধায়ক।মাটিগাড়া নকশালবাড়ির বিজেপি বিধায়ক আনন্দময় বর্মন বলেছেন,”উত্তরবঙ্গের মানুষ এই দাবি করছেন, আমাদের সংসদ উত্তরবঙ্গের মানুষের কথা বলেছেন।

আরও পড়ুন-আজ হাইকোর্টের বিচারপতি কৌশিক চন্দ্রের এজলাসে এক‌ই দিনে মিঠুন চক্রবর্তীর মামলা এবং শুভেন্দুর ত্রিপল মামলা।

যদি আলাদা রাজ্য গঠিত হয় তাহলে আমরা উন্নয়নের মুখ দেখবো।”ঠিক একই কথা বলেছেন ডাবগ্রাম ফুলবাড়ীর বিজেপি বিধায়ক শিখা চট্টোপাধ্যায়। তিনি বলেছেন, “উত্তরকন্যা তৈরি হয়েছে উত্তরবঙ্গের মানুষকে শুধু ঠকানোর জন্য। এই প্রতিষ্ঠানে কোনো কাজ হয়না, শুধুমাত্র আড্ডা হয়।

এক উত্তরবঙ্গ কে আলাদা রাজ্য করা হোক না হলে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল করা হোক, এর ফলে উত্তরবঙ্গের বুকে ভালো কাজ হতে পারে।”এই দুই বিজেপি বিধায়কের উবাচে যথেষ্ট অস্বস্তিতে পড়েছে বিজেপি। এমনিতেই জন বারলা, সৌমিত্র খাঁ এর মন্তব্যের পরে বিজেপি বিরোধীরা বিজেপি নেতাদের বঙ্গভঙ্গের ষড়যন্ত্রকারী বলে অভিহিত করে চলেছে।