ভারতের দুই গোয়েন্দা, যারা মুসলিম ছদ্মবেশে বেশ কয়েকবছর কাটিয়েছিলেন পাকিস্তানে

স্বাধীনতার আগে থেকেই আমাদের দেশে বীরগাথা রচিত হয়েছে বহুবার। ব্রিটিশ শাসনাধীন ভারতের মুক্তির জন্য বহু বীর মানুষ তাঁদের মূল্যবান রক্ত ঝরিয়েছেন এই দেশের মাটিতে। স্বাধীনতার পরেও সেনাবাহিনী তথা বিভিন্ন স্তরের বিভিন্ন মানুষ দেশের জন্য , দেশের মানুষের জন্য তাঁদের প্রাণ উৎসর্গ করেছেন। ভারতের মাটিতে বহু বীরপুরুষের জন্ম হয়েছে যাদের ইতিহাসের পাতায় স্থান হয়েছে। আসুন আজ এরকমই দুইজন বীর পুরুষের সম্পর্কে জানবো যাদের বীরত্বের কাহিনী সারা বিশ্বে সমাদৃত হয়েছে।

১) রবীন্দ্র কৌশিক – রাজস্থানের গঙ্গানগরের বাসিন্দা ছিলেন রবীন্দ্র কৌশিক। ভারতীয় গুপ্তচর সংস্থা RAW এর প্রধানের চোখে পড়ে গিয়েছিলেন রবীন্দ্র। ওই র এর প্রধান তাঁকে গোয়েন্দা সেজে পাকিস্তান যাওয়ার প্রস্তাব দিলে সাথে সাথে রাজি হয়েছিলেন তিনি। ভারতে ২ বছর কঠোর ট্রেনিং এর পর পাকিস্তান আর্মিতে গিয়ে যোগদান করেন রবীন্দ্র। সেইসাথে তিনি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিতে থাকেন ভারতীয় সেনার হাতে। তাঁর সাহসিকতার জন্য তাঁকে ডাকা হত ‘ব্ল্যাক টাইগার’ নামে।

আরও পড়ুন –ভারতের জন্য বড় খবর- ভারতে শুরু হতে চলেছে করোনা ভা’ইরাসের ট্রায়াল!

পাকিস্তানের এক মেয়েকে বিয়েও করেন তিনি। একসময় আরেক ভারতীয় গোয়েন্দা ধরা পড়ে গিয়ে রবীন্দ্রের নাম বলে দেয়। ধরা পড়েন কৌশিক। কিন্তু ভারত সরকার সেইসময় কোনো সাহায্য করেনি তাঁকে। অবশেষে এই দেশভক্ত বীর সৈনিক ২০০১ সালে নিজের জীবন দেন পাকিস্তান কাল কুঠুরিতে। তাঁর মরদেহ নিতেও চায়নি ভারত।

আরও পড়ুন –ধ’র্ষণের শি’কার টলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী, পুলিশের জালে অভিযুক্ত!

২) অজিত কুমার ডোভাল – বর্তমানে ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা এই মানুষটি পাকিস্তানের মাটিতে দীর্ঘ ৭ বছর মুসলিম‌ ছদ্মবেশে গো-য়ে-ন্দাগিরি চালিয়েছিলেন। ধরা পড়তে পড়তেও তিনি পরিস্থিতি সামলে নিয়েছিলেন। অজিত ডোভাল ভারতের বিরুদ্ধে পাকিস্তানের বহু পরিকল্পনা বানচাল করেছেন ওই সময়ে। সম্প্রতি সীমা বিতর্কের আবহে চিনকে কোনঠাসা করার জন্যে অজিত ডোভালের অবদান অসামান্য।

এখানে আপনার মতামত জানান