অক্সিজেনের অভাবে আগেই মারা গিয়েছে ২৫ জন আক্রান্ত। অনেক আবেদন করে অক্সিজেন পেল দিল্লির স্যার গঙ্গারাম হাসপাতাল।

অক্সিজেনের অভাবে আগেই মারা গিয়েছে ২৫ জন আক্রান্ত। অনেক আবেদন করে অক্সিজেন পেল দিল্লির স্যার গঙ্গারাম হাসপাতাল।

নিজস্ব প্রতিবেদন: সারা দেশ জুড়ে প্রবল শক্তি সঞ্চয় করে আছড়ে পড়েছে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ। লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। সারাদেশব্যাপী এক ভয়াবহ মৃত্যুর আতঙ্কের সূচনা হয়েছে। সারা দেশের মধ্যে এই মহামারীতে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে অগুনতি মানুষের। মহারাষ্ট্রের অবস্থা সবথেকে শোচনীয়। মহারাষ্ট্র এবং দিল্লিতে জারি হয়েছে সাময়িক লকডাউন। দিল্লির অবস্থা যথেষ্ট শোচনীয়। ‌ জানা গেছে গত ২৪ ঘন্টায় দিল্লির মাটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ২৪ হাজার ১৬৯ জন, সুস্থ হয়েছেন ১৯ হাজার ৬০৯ জন আক্রান্ত।

গত ২৪ ঘন্টায় এই মহামারিতে মৃত্যু ঘটেছে ৩০৬ জনের। এই নিয়ে দিল্লির বুকে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ লক্ষ ৫৬ হাজার ৩৪৮ জন। সারা দিল্লি জুড়ে সরকারি হাসপাতাল গুলোতে অক্সিজেন সিলিন্ডারের অপ্রতুলতা দেখা দিয়েছে। অক্সিজেনের হাহাকার দেখা দিচ্ছে বিভিন্ন হাসপাতালে। জরুরী ভিত্তিতে হাসপাতাল গুলিতে অতিরিক্ত বেডের ব্যবস্থা করছে প্রশাসন। এক ভয়াবহ পরিস্থিতি বিরাজ করছে দিল্লির বুকে।

আরও পড়ুন-করোনা আবহে দেশে অক্সিজেনের অভাবের পরিপ্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় সরকারকে আক্রমণ রাহুল‌ গান্ধীর।

সঙ্কটজনক পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে অক্সিজেনের অপ্রতুলতা কে কেন্দ্র করে। পশ্চিমবঙ্গ, দিল্লি, লক্ষ্ণৌ, মহারাষ্ট্র সহ দেশের অনেক জায়গাতেই অক্সিজেনের যোগানের অত্যন্ত সমস্যা দেখা দিয়েছে যার প্রতিবাদে সোশ্যাল মিডিয়ায় সোচ্চার হয়েছেন নেটিজেনরা। নেটিজেনরা সোশ্যাল মিডিয়ায় ‘উই কান্ট ব্রিথ’ হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে অক্সিজেনের ঘাটতির প্রতিবাদে সরব হয়েছেন। দিল্লি, লক্ষ্ণৌ এর হাসপাতাল গুলিতে বীভৎস পরিবেশ বিরাজ করছে। দিল্লির বহু বেসরকারি এবং সরকারি হাসপাতালগুলো পর্যন্ত রোগী ভর্তি বন্ধ করে দিয়েছে।

দিল্লির গঙ্গারাম হাসপাতালের অবস্থা খুবই শোচনীয়। সেখানে ২৫ জন করোনা রোগী মারা গিয়েছে পর্যাপ্ত অক্সিজেনের অভাবে। আজ সকালেই তারা জানিয়েছিলো যে আর মাত্র দুই ঘন্টা অক্সিজেন যোগান দেওয়া যাবে করোনা রোগীদের। তারা জানিয়েছিলো যে ৬০ জন করোনা রোগীর অবস্থা খুবই আশঙ্কাজনক। সময়মতো অক্সিজেন না দিলে তাদের বাঁচানো যাবে না। দিল্লির এই নামী বেসরকারি হাসপাতালে তার পরেই অক্সিজেন ভর্তি ট্যাঙ্কার পাঠিয়ে দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। ওই হাসপাতালে বর্তমানে ৫০০ জনের‌ও বেশী করোনা রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছেন।