তৃণমূলের পাল্টা চাল বিজেপির। ৫০ টি আসনে পুনর্গণনা চেয়ে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হতে চলেছে বিজেপি।

তৃণমূলের পাল্টা চাল বিজেপির। ৫০ টি আসনে পুনর্গণনা চেয়ে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হতে চলেছে বিজেপি।

নিজস্ব প্রতিবেদন: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নন্দীগ্রামের রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে কলকাতা হাইকোর্টে মামলা দায়ের করেছেন। এই বিষয়ে তীব্র কটাক্ষ করেছে বিজেপির সমস্ত নেতা কর্মীরা।একুশের ভোটে সকলের পাখির চোখ ছিল নন্দীগ্রাম। এই নন্দীগ্রামের মাটিতে মুখ্যমন্ত্রী কে ১ হাজার ৯৫৬ টি ভোটে হারিয়ে দিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী।

কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী এই হার দূর্নীতিগ্রস্ত বলে প্রথম থেকেই দাবী করে এসেছেন। ভোটের সময় থেকেই নন্দীগ্রামে যথেষ্ট উত্তপ্ত পরিস্থিতি বিরাজ করছে। শুভেন্দু অধিকারী নন্দীগ্রামের মাটিতে চ্যালেঞ্জ জানিয়েছিলেন যে তিনি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে অনায়াসে হারিয়ে দেবেন। ফল ঘোষণার ৪৫ দিন পরে নন্দীগ্রামের ভোটের ফলাফলকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে হাইকোর্টে আপিল করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আরও পড়ুন-“অল্প ব্যবধানে হেরে যাওয়া আসনে পূনর্গণনার আর্জি জানিয়ে আদালতে যাবে বিজেপি।”- জানালেন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

তিনি ইলেকশন পিটিশন দায়ের করেছেন। গণনায় কারচুপির অভিযোগ এর পাশাপাশি নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি অভিযোগ এনেছেন মুখ্যমন্ত্রী।এছাড়াও আরও চারটি কেন্দ্রের তৃণমূলের পরাজিত প্রার্থীরা পুনর্গণনার দাবি জানিয়ে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছে। আদালত ঘোষণা করেছে আগামী সপ্তাহে বৃহস্পতিবার এই মামলার শুনানি হতে চলেছে।

আরও পড়ুন-করোনার ভয়াবহ আবহে কোনো অনুষ্ঠান না করে রাহুল গান্ধীর জন্মদিনে সেবাদিবস পালন করলো কংগ্রেস নেতৃত্ব।

এদিকে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছেন,”একুশের ভোটে যে সমস্ত আসনে বিজেপির অল্প ভোটের ব্যবধানে পরাজয় ঘটেছে , সেই সমস্ত আসনে বিজেপি পূনর্গণনার আবেদন জানিয়ে খুব শীঘ্রই আদালতের দ্বারস্থ হবে। কিভাবে আদালতে পিটিশন দাখিল করা হবে সেই মর্মে আমাদের আইনজীবীদের সাথে আলোচনা চলছে। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই এই আবেদন করা হবে।”

আরও পড়ুন-আসানসোলের জে কে নগরে অগ্নিমিত্রা পলের গাড়ি ঘিরে বিক্ষোভ তৃণমূল কর্মী সমর্থকদের।

বিজেপি জানিয়েছে, রাজ্যে ৫০ টি বিধানসভা কেন্দ্রে দেখা গিয়েছে সেখানে যৎসামান্য ভোটে হার হয়েছে বিজেপির। কোথা‌ও মাত্র ১০০০ আবার কোথাও ২ থেকে ৩ হাজারে হার হয়েছে। সেইসব ৫০ টি কেন্দ্রের পুনর্গণনার দাবি নিয়ে কলকাতা হাইকোর্টে যেতে চলেছে তারা। বিজেপি অভিযোগ করেছে বেশ কয়েকটি জায়গায় বিজেপি এজেন্টদের ভয় দেখিয়ে গণনা কেন্দ্র থেকে তাড়িয়ে দিয়েছে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা।