‘বিজেপির আচ্ছে দিন মানে গুলি করে মানুষ মেরে দিন’;দাবি তৃণমূল সুপ্রিমো মমতার!

‘বিজেপির আচ্ছে দিন মানে গুলি করে মানুষ মেরে দিন’;দাবি তৃণমূল সুপ্রিমো মমতার!

নিজস্ব প্রতিবেদন:-চতুর্থ দফার নির্বাচনের শুরু থেকেই যেন হঠাৎ করে রাজ্যের পরিস্থিতি ভয়াবহ হয়ে উঠেছে। এতদিন পর্যন্ত যে হিংসাত্মক ঘটনাগুলি সামান্য অবস্থাতেই সীমিত ছিল তা রীতিমতো মানুষের মৃত্যুতে পরিণত হয়েছে। গতকাল কোচবিহারের শীতলকুচি এলাকায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানদের গুলিতে যুবকদের মৃত্যুর পরেই বাংলার রাজনীতি আরো অস্বস্তিকর অবস্থায় পৌঁছে গিয়েছে। এমতাবস্থায় বনগাঁর সভা থেকে পঞ্চম দফার ভোট প্রচারে গিয়ে বেশ কয়েকটি বিস্ফোরক দাবি করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এদিন বক্তব্য রাখতে গিয়ে মমতাকে বলতে শোনা যায়,”নরেন্দ্র মোদী বলেছিলেন আনবেন আচ্ছে দিন। উনি আচ্ছে দিন এনেছেন। বিজেপির আচ্ছে দিন মানে গুলি করে মানুষ মেরে দিন। বিজেপির আচ্ছে দিন মানে গ্যাসের দাম বাড়িয়ে দিন। বিজেপির আচ্ছে দিন মানে NPR চালু করে দিন। বিজেপির আচ্ছে দিন মানে ডিটেনশন ক্যাম্পে মানুষকে ভরে দিন”।সঙ্গে আরও যোগ করে তৃণমূল সুপ্রিমো বলেন,”গ্যাস কিনতে হচ্ছে ১ হাজার টাকা দিয়ে। ওঁরা ভোটের আগে আপনাকে টাকা দেবে, আপনি টাকা নেবেন কিন্তু ওদের ভোট দেবেন না। বিজেপি সয়াজের লজ্জা, মানবতার লজ্জা”।

আরও পড়ুন-স্বামীকেই কি ভোটটা দিলেন শুভশ্রী? রাজ শুভশ্রী একসাথে দিলেন ভোট, ভাইরাল ভিডিও!

এর পরেই শীতলকুচির ঘটনায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে আক্রমণ করেন মমতা। মুখ্যমন্ত্রী বলেন,“আমি সেন্ট্রাল ফোর্সকে খারাপ বলছি না। কিন্তু তাদের পরিচালনা করছেন অমিত শাহ।দেশের হোম মিনিস্টার, দেশের কাজ করে না, বাংলায় বসে চক্রান্ত করছে। নয় মেয়েদের উপর অত্যাচার করছে, নয় এলাকায় গিয়ে গুলি চালিয়ে দিচ্ছে। নানান রকম অত্যাচার করছে। অত্যাচার করতে করতে সাহস বেড়ে গিয়েছে।

ভোটের লাইনে চার জনকে গুলি চালিয়ে মেরে দিয়েছে।আজকে বলছে পুলিশ মেরেছে, না মেরে কোনো উপায় ছিল না। ভাবুন একবার দেশের প্রধানমন্ত্রী বলছে গুলি চালিয়ে ঠিক করেছে। মানে ক্লিনচিট দিয়ে চলে গেল।শিলিগুড়িতে দাঁড়িয়ে মিটিং করে যারা গুলি চালিয়েছে, তাদের ক্লিনচিট দিয়ে চলে গেলেন। কিন্তু শীতলকুচি গেলেন না একবারও। যেখানে পাঁচজনের ডেড বডি পড়ে রয়েছে”।