নিউজ

“দম থাকলে বিজেপি নেতারা পঞ্চায়েতে মনোনয়ন দিয়ে দেখাক। ঠ্যাং ভেঙে দেবো”- প্রকাশ্যে হুমকি দিলেন তৃণমূল বিধায়ক

নিজস্ব প্রতিবেদন: বাংলায় ভোট-পরবর্তী হিংসার পরীক্ষার্থীদের জাতীয় মানবাধিকার কমিশন পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারকে দোষারোপ করে একটি রিপোর্ট প্রস্তুত করেছিল। ‌ এই রিপোর্টে তারা উল্লেখ করেছিল যে বাংলায় ভোট পরবর্তী হিংসাত্মক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে এবং বহু মহিলাদের উপর অত্যাচার করা হয়েছে, বহু মানুষ এই হিংসাত্মক পরিস্থিতির শিকার হয়ে ঘরছাড়া হয়েছেন, এছাড়াও রাজ্য প্রশাসন সম্পূর্ণ নির্বিকার বলে দাবি করেছিল মানবাধিকার কমিশনের রিপোর্ট।

এই রিপোর্টে পুলিশ প্রশাসনকে রাজ্য প্রশাসনের হাতের পুতুল বলে অভিহিত করা হয়েছিল। এই আবহের মধ্যে কোচবিহারের সিতাই এর তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়ক জগদীশ বর্মা বাসুনিয়া প্রকাশ্যে বিজেপির বিরুদ্ধে হুমকি দিলেন। জগদীশবাবু প্রকাশ্যে বিজেপির বিরুদ্ধে আক্রমণ শানিয়ে বলেছেন, “পঞ্চায়েত নির্বাচনে কোন বিজেপি নেতা যদি মনোনয়ন জমা দিতে যায় তাহলে মেরে তার ঠ্যাং ভেঙে দেওয়া হবে।

আরও পড়ুন –কন্যাশ্রী দিবসে টুইট করলেন মুখ্যমন্ত্রী। কি বললেন তিনি ?

পঞ্চায়েত নির্বাচনে আমাদের মিলিটারি, আমাদের বিএসএফ মোতায়েন থাকবে।” প্রকাশ্য দিবালোকে তার এই হুমকি যথেষ্ট চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে রাজ্য রাজনীতিতে। এই উক্তির ফলে রাজ্য সরকারের প্রতি কড়া আক্রমণ শানানোর রসদ পেয়ে গিয়েছে বিরোধী দলগুলি। তৃণমূল বিধায়ক জগদীশবাবুর এই হুমকি শুনে স্পষ্টতই আশঙ্কা করা হচ্ছে গত বারের মতো এবারের পঞ্চায়েত নির্বাচনে হিংসাত্মক পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে।

জানা গেছে গত ২০১৮ এর পঞ্চায়েত নির্বাচনে সারা রাজ্য জুড়ে যথেষ্ট হিংসাত্মক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছিল। বিজেপি দাবি করেছিল যে তৃণমূলের দুষ্কৃতীদের হাতে অন্তত সারা রাজ্য জুড়ে ২০০ জনের‌ও বেশী মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। কিন্তু বিজেপির এই অভিযোগ আগাগোড়া অস্বীকার করে এসেছে তৃণমূল কংগ্রেস। কিন্তু এই আবহের মধ্যে তৃণমূল বিধায়ক জগদীশ বাবুর এই প্রকাশ্যে হুমকি যথেষ্ট অস্বস্তির মধ্যে ফেলে দিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেসকে।

আরও পড়ুন –নর্থ সেন্ট্রাল রেল‌ওয়েতে জারি হল ১৬৬৪ টি শূন্যপদের বিজ্ঞপ্তি।

গতকাল তৃণমূল বিধায়ক জগদীশ বর্মা মন্তব্য করেছেন, “আগামী লোকসভা নির্বাচনে সারা ভারতের মানুষ বিজেপিকে উৎখাত করে ছাড়বে। এই সরকার কোটি কোটি টাকা দেনা করে বসে আছে যা শোধ করার জন্য সরকারি সম্পত্তি গুলিকে বিক্রি করছে। আগামী ২০২৩ এর পঞ্চায়েত ভোট নিয়ে যারা আশা রেখেছেন তাদের বাপের দম থাকলে বিডিও অফিসে মনোনয়ন জমা দিয়ে দেখাক।

বিধানসভা ভোটে বিএসএফ, কেন্দ্রীয় বাহিনী নিয়ে আমাদের ভয় দেখিয়ে ছিল পঞ্চায়েত ভোটে আমাদের মিলিটারি, বিএসএফ মোতায়েন থাকবে। বিজেপি নেতারা পঞ্চায়েত অফিসের সামনে মনোনয়ন পেশ করতে এলে তাদের মেরে ঠ্যাং ভেঙে দেওয়া হবে।” এই ঘটনায় রাজ্য রাজনীতিতে যথেষ্ট চাঞ্চল্যকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

Related Articles

Back to top button