নিউজপলিটিক্সরাজ্য

“ত্রিপুরায় একমাত্র বিকল্প তৃণমূল”- বিজেপির বিরুদ্ধে সিপিএম এবং কংগ্রেসকে দাঁড়ানোর আহ্বান জানালেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়

নিজস্ব প্রতিবেদন: ত্রিপুরার মাটিতে আগামী বিধানসভায় নিজেদের গড় প্রতিষ্ঠা করতে তৎপর হয়েছে তৃণমূল। গতকাল ত্রিপুরায় পা রেখেছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু তৃণমূল সর্বভারতীয় সভাপতির গাড়িতে হামলার অভিযোগ উঠেছে বিজেপি কর্মী সমর্থকদের বিরুদ্ধে। এবার ত্রিপুরার মাটি থেকে সিপিএম এবং কংগ্রেস কর্মীদের বিজেপির বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য তৃণমূলের সাথে আসার আহ্বান জানিয়েছেন অভিষেক।

গতকাল ত্রিপুরার মাটি থেকেই বার্তা দিয়েছেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি গতকাল বলেছেন, “বিজেপির বিদায়ঘণ্টা বেজে গিয়েছে। এখন গুন্ডা সমাজবিরোধীদের খেলা শেষ হয়েছে, মা-মাটি-মানুষের খেলা শুরু হয়ে গিয়েছে।”গতকাল ত্রিপুরার মাটি থেকে দাঁড়িয়ে অভিষেক সরাসরি চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছেন বিজেপির দিকে।

আরও পড়ুন-“দিলীপ ঘোষকে নির্বোধ বলিনি”- ফেসবুকে পোস্ট করলেন বাবুল সুপ্রিয়।

এছাড়াও তিনি জোট গঠনের উদ্দেশ্যে সিপিএম , কংগ্রেস নেতাদের উদ্দেশ্যে বার্তা দিয়েছেন। তিনি বলেছেন,”বামফ্রন্ট এবং কংগ্রেসের অনেক নেতারাই বিজেপির বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য একটি প্ল্যাটফর্ম এর খোঁজ করছিলেন। যদি দলমত নির্বিশেষে আপনারা একটি উন্নয়নের সরকারকে ত্রিপুরার মাটিতে দেখতে চান, তাহলে তৃণমূলের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াই করুন। আমরা সকলে মিলে ত্রিপুরার মাটিতে উন্নয়নের সরকার গঠন করবো ।

যারা সংশয়ের মধ্যে রয়েছেন, এখনই তাদের সিদ্ধান্ত নিতে বলবো না। এখানে মনে রাখবেন বিরোধী মজবুত নয় বলে বিজেপি যথেষ্ট অত্যাচার শুরু করেছে। আজ থেকে এই অত্যাচারের সমাপ্তি পর্বের সূত্রপাত হলো।”কিন্তু সিপিএম নেতাদের উদ্দেশ্যে একসাথে লড়াইয়ের আহ্বান জানালেও সিপিএমের সাথে জোট করবেন না, এই বিষয়টি স্পষ্ট করে দিয়েছেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

আরও পড়ুন-কাঁথি সমবায় ব্যাঙ্কের চেয়ারম্যান পদে থাকছেন শুভেন্দু। হাইকোর্টের নির্দেশে বাতিল হয়ে গেল অনাস্থা বৈঠক

তিনি বলেছেন, “বাংলার মাটিতে বিগত ৩৪ বছর ধরে যে অত্যাচার অনাচার বামেরা করেছে বাংলার মানুষ সে সম্পর্কে ওয়াকিবহাল। ‌ তবে সিপিএমের নেতৃত্ব লড়াই করতে চাইলে তাদেরকে আমরা স্বাগত জানাব। কিন্তু মনে রাখবেন বিজেপির বিরুদ্ধে একমাত্র বিকল্প তৃণমূল কংগ্রেস। আমরা কখনোই ঘর ভাঙ্গানোর উদ্দেশ্যে রাজনীতিতে আসিনি।

যদি আমাদের উদ্দেশ্য হত ঘর ভাঙ্গানো তাহলে একমাসের মধ্যেই বিপ্লব দেবের সরকারকে পাততাড়ি গুটিয়ে নিতে হবে। আমরা ত্রিপুরার মানুষের উন্নয়নের স্বার্থে লড়াইয়ে নেমেছি।”

Related Articles

Back to top button