নিউজপলিটিক্স

“ত্রিপুরায় উৎপাত করতে যাচ্ছে তৃণমূল।”- কটাক্ষ দিলীপের। পাল্টা কটাক্ষ ব্রাত্য বসুর।

নিজস্ব প্রতিবেদন: ত্রিপুরার মাটিতে গত শনিবার থেকে যথেষ্ট চাঞ্চল্যকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। ‌ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ত্রিপুরার আগামী ২০২৩ এর ভোটে বিজেপি সরকারের পতন নিশ্চিত করতে নানান কর্মসূচি গ্রহণ করছেন। ইতিমধ্যেই প্রশান্ত কিশোরের সংস্থা আইপ্যাকের কর্মীরা সমীক্ষা চালিয়ে এসেছে ত্রিপুরার মাটিতে। গত শনিবার থেকেই ত্রিপুরার রাজনৈতিক পরিস্থিতি যথেষ্ট উত্তপ্ত হয়ে রয়েছে।

তৃণমূলের যুব নেতা দেবাংশু ভট্টাচার্য, সুদীপ রাহা, জয়া দত্ত দের উপরে হামলার অভিযোগ উঠেছে ত্রিপুরার বিজেপি কর্মীদের বিরুদ্ধে। দেবাংশু দের গ্রেফতার করেছিলো ত্রিপুরা পুলিশ। খোয়াই থানায় উপস্থিত হয়ে তৃণমূলের সর্বভারতীয় সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় যথেষ্ট বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েছিলেন পুলিশ আধিকারিক দের সাথে।

এছাড়াও তার সাথে উপস্থিত ছিলেন কুনাল ঘোষ, ব্রাত্য বসুরা । এই আবহে আবার খোয়াই থানা কুণাল ঘোষ, অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় সহ ৫ জনের বিরুদ্ধে এফ‌আইআর দায়ের করেছে। এই আবহের মধ্যে তৃণমূলকে প্রতি যথেষ্ট কটাক্ষ করেছেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেছেন “রাজ্য সরকার বিমান ভাড়া নেওয়ার জন্য অর্ডার দিয়েছে। এবার এই বিমান এলে একবার দিল্লি, একবার ত্রিপুরা যাবে রাজ্যের নেতারা।

আরও পড়ুন –অনলাইন টিকিট বুকিংয়ে বড়োসড়ো পরিবর্তন নিয়ে এলো ভারতীয় রেল।

ত্রিপুরাতে তৃণমূল কি করবে ? কার সময় আছে ? লোকসভাতে গত ১৫ দিন ধরে টেবিল চাপড়ে, কাগজ ছুঁড়ে যেমন অসভ্যতা করেছে এবার এই অসভ্যতার রাজনীতি সারা ভারত জুড়ে ছড়িয়ে দিতে চাইছে। পশ্চিমবাংলায় কোন নিয়ম কানুন নেই, কিন্তু ত্রিপুরায় নিয়ম কানুন আছে। তাই ওখানে গিয়ে যারা বিনা কারণে অশান্তি পাকাবে তাদের গ্রেপ্তার করা হবে।”

এই আবহে আবার পাল্টা তৃণমূল নেতা ব্রাত্য বসু বলেছেন, “নির্বাচনের আগে ঘনঘন দিল্লি থেকে বাংলায় এসেছেন বিজেপি নেতারা , তখন ভ্যাকসিনের কথা মনে পড়েনি? দ্বিতীয় ঢেউ যে আসতে চলেছে সেটা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা আগেই জানিয়ে দিয়েছিল তখন‌ও তারা আসা থামাননি, আর এখন আমরা ত্রিপুরা গেলে তারা ভ্যাকসিনের দোহাই দিচ্ছেন, করোনার দোহাই দিচ্ছেন।”

Related Articles

Back to top button