আজ তৃণমূল ভবনে সাংগঠনিক বৈঠক করতে চলেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আজ তৃণমূল ভবনে সাংগঠনিক বৈঠক করতে চলেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটে বাংলার মাটিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের অশ্বমেধ যজ্ঞের ঘোড়া একাই রুখে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তারপরেই সারা রাজ্যের মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পোস্ট ট্রেন্ডিং হয়ে উঠছে, ‘বাঙালি প্রধানমন্ত্রী চাই।’ নেটিজেনরা হ্যাশ ট্যাগ ব্যবহার করে বারবার দাবি করছেন এবারে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে অনেকেই প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেখতে চান।

দেশের বিভিন্ন বিরোধী দলের নেতারা প্রধানমন্ত্রী পদে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে যথেষ্ট উপযুক্ত বলে মনে করছেন।আজ তৃণমূল ভবনে সাংগঠনিক বৈঠক করতে চলেছেন মুখ্যমন্ত্রী। জানা গিয়েছে ওই বৈঠকে উপস্থিত থাকতে চলেছেন জেলা সভাপতি, সাংসদ, পুর প্রশাসক এবং বিধায়করা । করোনা পরিস্থিতির জন্য দূরবর্তী জেলার প্রতিনিধিদের ভার্চুয়াল মাধ্যমে এই বৈঠকে অংশগ্রহণ করতে বলা হয়েছে।

আরও পড়ুন-ভোটের পরেই আবার ময়দানে নামছেন তৃণমূলের ভোট কুশলী প্রশান্ত কিশোর।

মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ দিয়েছেন যে কলকাতায় এবং তার পার্শ্ববর্তী জেলাগুলোর প্রতিনিধিরা তৃণমূল ভবনে এই বৈঠকে যোগ দেবেন। দূরবর্তী জেলার প্রতিনিধিরা ভার্চুয়াল মাধ্যমে এই বৈঠকে অংশগ্রহণ করবেন। একুশের ভোটের ফল প্রকাশের পর এটাই হতে চলেছে একটি বড় সাংগঠনিক বৈঠক। তবে এই বৈঠকে কি কি প্রসঙ্গে আলোচনা হতে চলেছে তা এখনো পর্যন্ত জানা যায় নি।

আরও পড়ুন-“ইয়াসের তান্ডবের পর মমতাই রাস্তায় নেমেছেন। বিজেপি নেতারা নয়।”- বললেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়

দলীয় সূত্র মারফত জানা গিয়েছে এই বৈঠকে তৃণমূল সংগঠনের বেশকিছু রদবদল হতে পারে। বেশকিছু নেতাকে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব ভার অর্পণ করা হতে পারে । অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাঁধে উঠতে পারে বেশ কিছু গুরুদায়িত্ব। এছাড়াও এক ব্যক্তি এক পদ চালু করার উপরে জোর দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূল সুপ্রিমো এই বৈঠকে কী কী সিদ্ধান্ত নেন তা জানা যাবে বৈঠকের পরেই।