“যারা শীতলকুচি করেছে তারা হেরে গিয়েছে”- মন্তব্য করলেন দিলীপ ঘোষ

“যারা শীতলকুচি করেছে তারা হেরে গিয়েছে”- মন্তব্য করলেন দিলীপ ঘোষ

নিজস্ব প্রতিবেদন: কোচবিহারের শীতলকুচিতে কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে ঝরে গিয়েছে চারটি তরতাজা প্রাণ। কেন্দ্রীয় বাহিনীর ওপর হামলার অভিযোগে আত্মরক্ষার্থে তাদের উপর গুলি চালিয়েছে বাহিনী। ‌ কোচবিহারের এসপি জানিয়েছেন, “প্রায় ৩০০ থেকে ৪০০ জন কেন্দ্রীয় বাহিনীর উপর স্থানীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা করতে এসেছিল, তাই নিরাপত্তার স্বার্থে গুলি চালিয়েছে কেন্দ্রীয় বাহিনী।

কোচবিহারের এই শীতলকুচি কান্ড নাড়িয়ে দিয়েছে বাংলার রাজনীতি। আজ শীতলকুচির মাথাভাঙায় মৃত ব্যক্তিদের পরিবারের সাথে দেখা করতে গিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই কাণ্ডের পরেই তৃণমূল এবং বিজেপির দ্বৈরথ চরম পর্যায়ে পৌঁছেছে । শীতলকুচি নিয়ে মন্তব্য করে নির্বাচনী বিধি ভঙ্গের অভিযোগে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এর জনসভা ২৪ ঘন্টার জন্য নিষিদ্ধ করে দিয়েছিলো নির্বাচন কমিশন।

আরও পড়ুন-কালচে বা হলদে দাঁত লেবু পাতা দিয়ে মাত্র সাতদিনে একদম ঝকঝকে ও সাদা করার দারুণ পদ্ধতি!

এর পাশাপাশি শোকজের নোটিশ পাঠানো হয়েছে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ, অনুব্রত মণ্ডল এবং রাহুল সিনহা কে। রাহুল সিনহার জনসভায় ৪৮ ঘন্টার নিষেধাজ্ঞা চাপিয়েছে নির্বাচন কমিশন।দিলীপ ঘোষ এই ঘটনার পর বলেছিলেন, “বাড়াবাড়ি করলে জায়গায় জায়গায় শীতলকুচি হবে।” দিলীপ ঘোষের এই মন্তব্যকে কেন্দ্র করে যথেষ্ট চাপানউতোর সৃষ্টি হয় বাংলার রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে।

এর পরেই তাকে শোকজের নোটিশ পাঠিয়েছে নির্বাচন কমিশন।এই প্রসঙ্গে দিলীপ ঘোষ বলেছেন , “নির্বাচন কমিশনের নোটিশ আমি হাতে পেয়েছি, আমি রাতেই এর জবাব দিয়ে দিয়েছি। শীতলকুচি হয়ে গেছে আমরা এগিয়ে গেছি। যারা শীতলকুচি করেছিল তারা হেরে গেছে।”