নিউজদেশপলিটিক্স

এবার সমগ্র কংগ্রেস দলের‌ই অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্ট ব্লক করার অভিযোগ তুললো কংগ্রেস

নিজস্ব প্রতিবেদন: ভারতের সবথেকে পুরনো রাজনৈতিক দল কংগ্রেস অভিযোগ করেছে যে রাহুল গান্ধী সহ ৫ জন কংগ্রেস নেতার টুইটার অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এই বিষয়টিকে কেন্দ্র করে যথেষ্ট চাঞ্চল্যকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে রাজ্য রাজনীতিতে। কংগ্রেস লাগাতার এই অভিযোগের ভিত্তিতে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে আক্রমণ শানিয়ে চলেছে। কংগ্রেস অভিযোগ করেছে যে কেন্দ্রীয় সরকারের উদ্যোগে রাহুল গান্ধী সহ কংগ্রেসের এই সমস্ত শীর্ষ নেতাদের টুইটার অ্যাকাউন্ট ব্লক করে দেওয়া হয়েছে।

কংগ্রেস অভিযোগ করেছে যে এই সমস্ত অন্যায়ের প্রতিবাদ তারা অবশ্যই করবে, শীর্ষ নেতারা অভিযোগ করেছেন যে বিজেপি সরকার কণ্ঠরোধ করার চেষ্টা করে চলেছে।প্রসঙ্গত গত সপ্তাহে বুধবার দিল্লির ধর্ষিতা নাবালিকার পরিবারের সাথে দেখা করতে গিয়েছিলেন রাহুল গান্ধী। সেখানে গিয়ে তিনি নাবালিকার বাবা-মায়ের সাথে একটি ছবি পোস্ট করে বিতর্কের সাথে জড়িয়ে যান তিনি । ধর্ষিতা নাবালিকার বাবা-মায়ের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করায় তার টুইটার অ্যাকাউন্ট ব্লক করে দেয় টুইটার, এমনটাই অভিযোগ করেছে কংগ্রেস।

আরও পড়ুন-ত্রিপুরার পাশাপাশি এবার যোগীরাজ্যে ‘খেলা হবে দিবস’ পালন করবে তৃণমূল

কংগ্রেস অভিযোগ করেছে যে কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক অজয় মাকেন , লোকসভার সদস্য মনিক্কম ঠাকুর, কংগ্রেসের মিডিয়া ইনচার্জ রনদীপ সূর্যেওয়ালা , এছাড়াও কংগ্রেসের মহিলা সভানেত্রী সুস্মিতা দেব, কংগ্রেসের প্রাক্তন মন্ত্রী জিতেন্দ্র সিং এর অ্যাকাউন্ট সাসপেন্ড করে দিয়েছে টুইটার।এবার সমগ্র কংগ্রেস দলের অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্ট ব্লক করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে টুইটার কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। গতকাল কংগ্রেস দাবি করেছে যে তাদের অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্ট ব্লক করে দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন-“দুয়ারে সরকারে সুবিধা পাইয়ে দেওয়ার নামে তোলাবাজি বরদাস্ত করা হবে না”- জেলা শাসকদের সতর্ক করে দিল নবান্ন

এই প্রসঙ্গে কংগ্রেসের সোশ্যাল মিডিয়া প্রধান রোহন গুপ্তা বলেছেন,”টুইটারের নিয়ম না মানার কারণ দেখিয়ে আমাদের দলের অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্ট সাসপেন্ড করে দেওয়া হয়েছে। আমরা সকলেই স্পষ্টত‌ই বুঝতে পারছি যে, কেন্দ্রীয় সরকারের অঙ্গুলিলেহনে টুইটার এই কাজ করে চলেছে। সমগ্র ভারতজুড়ে কংগ্রেসের পাঁচ হাজার নেতা কর্মীদের অ্যাকাউন্ট ব্লক করে দেওয়া হয়েছে।”

Related Articles

Back to top button