এবার একঘরে চীন, ভারত-চীন সং’ঘ’র্ষের আবহেই তিব্বত নিয়ে বড় ঘোষণা আমেরিকার!!

আমেরিকার সাথে চিনের সম্পর্ক বর্তমানে একদমই তলানিতে এসে ঠেকেছে। করোনার উৎপত্তি হয়েছিলো চিনের উহান শহর থেকে। আজ সেখান থেকে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে গিয়েছে করোনা। প্রাণ গিয়েছে বহু মানুষের। আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রথম থেকেই চিনকে দায়ী করে আসছিলেন। চিন কোনো তথ্য দেয়নি এবং উহানের ল্যাবে যেতেও তদন্তকারী দলকে অনুমতি দেয়নি

এই অভিযোগে সরব হয়েছিলেন ট্রাম্প। বর্তমানে ভারতের সাথেও চিনের সীমান্তে অশান্তি অব্যাহত। তবে তা এই দুদিনে কিছুটা হলেও শিথিল হয়েছে। আবার দক্ষিণ চিন সাগরে আমেরিকা তাদের যুদ্ধজাহাজ মোতায়েন করেছে চিন সাগরে চিনের দাদাগিরি রোখার জন্য। জাপানের সাথেও দ্বীপ নিয়ে ঝামেলা হচ্ছে চিনের। আবার হংকং এ বিরাট বিদ্রোহ দেখা দিয়েছে চিন প্রশাসনের বিরুদ্ধে।

ক্রমশ‌ই চিনের আগ্রাসী নীতি সকলের সামনে আসছে। এবার আমেরিকার একটি ঘোষণায় আবার চাপে পড়েছে চিন। আমেরিকার বিদেশ মন্ত্রী মাইক পম্পি রেসিপ্রোকল অ্যাকসেস টু তিব্বত আইন অনুযায়ী চিনের আধিকারিকদের একটি গোষ্ঠীর ভিসা নিষিদ্ধ করার ঘোষণা করেছে। মাইক পম্পি বলেছেন যে, “চিন তিব্বতে আমেরিকার কোনো সাংবাদিক, কূটনীতিবিদ্, পর্যটকদের প্রবেশ করতে দেয়না।

অথচ তারা অবাধে আমেরিকায় যাতায়াত করতে পারে। তাই এই কারণেই আমিই চাইনিজ আধিকারিকদের ভিসা নিষিদ্ধ করার কথা ঘোষণা করছি। এই পদক্ষেপ আমরা নিয়েছি তিব্বতে পারস্পারিক প্রবেশাধিকার আইন ২০১৮ অনুযায়ী।” চিনের কপালে আমেরিকার এই সিদ্ধান্তের ফলে স্পষ্টত‌ই সমস্যার রেখা দেখা দিয়েছে।

এখানে আপনার মতামত জানান