নিউজপলিটিক্সরাজ্য

“বাংলায় বিশ্বাসঘাতকদের কোন জায়গা নেই”- নাম না করে রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে পোস্টার পরলো ডোমজুড়ে।

নিজস্ব প্রতিবেদন: বিধানসভা ভোটের আগে দলে দলে তাবড় তাবড় নেতা-নেত্রীরা তৃণমূল ছেড়ে যোগ দিয়েছিলেন বিজেপিতে। ২০১৭ সালে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন মুকুল রায়। কিন্তু গতকাল তিনি আবার ফিরে গিয়েছেন তার আগের দল তৃণমূলে। মুকুল রায়ের তৃণমূলের প্রত্যাবর্তনের পরেই বিজেপির অন্দরে বৃদ্ধি পেয়েছে অন্তর্কলহ।

বিজেপি শীর্ষ নেতাদের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখিয়েছে বিজেপির নেতা কর্মীরা। বিধানসভা ভোটের কয়েক মাস আগেই তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে চলে গিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী। ‌ বর্তমানে তিনি রাজ্যের অন্যতম বিরোধী দলনেতা।রাজীব বন্দোপাধ্যায় এবং প্রবীর ঘোষাল‌ও তৃণমূলে ফিরতে চেয়ে পা বাড়িয়ে রয়েছেন।

আরও পড়ুন-“বিজেপি থেকে আরো লোক তৃণমূলে আসবে”- বললেন মুখ্যমন্ত্রী।

বিজেপির ঘরে এই ভাঙনে রীতিমতো শঙ্কিত রাজ্য বিজেপির কর্মকর্তারা। তৃণমূলের প্রাক্তন সেচমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপিতে যোগদান করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি নিয়ে কাঁদতে কাঁদতে বেরিয়ে এসেছিলেন। ডোমজুড় থেকেই বিজেপির হয়ে লড়াই করে বিপুল ভোটে হেরেছেন তিনি। হেরে গিয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে অনেক সময়েই সোচ্চার হতে দেখা গিয়েছিলো রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় কে।

আরও পড়ুন-“বিজেপি তাদের সর্বভারতীয় সহ-সভাপতিকেই ধরে রাখতে পারল না।”- রাজ্য বিজেপিকে কটাক্ষ কুণাল ঘোষের

কয়েকদিন আগেই তিনি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কটাক্ষ করার বিরুদ্ধে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেন। তারপর থেকেই তাঁর তৃণমূলে ফেরার জল্পনা জোরদার হয়।কিন্তু ডোমজুড়ের মানুষ তথা তৃণমূল কর্মীরা কিছুতেই রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় কে তৃণমূলের ফিরিয়ে নিতে নারাজ। ডোমজুড়ে রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় এর নাম না করেই তার বিরুদ্ধে পোস্টার পড়েছে বিভিন্ন জায়গায়।

আরও পড়ুন-‘গোয়ালের গরু দড়ি ছিঁড়ে পালিয়েছিল, খুঁটিতে বাঁধা হলো’ – মুকুল প্রত্যাবর্তনে অনুব্রত

বাঁকড়া এলাকায় এই পোস্টার গুলিতে লেখা রয়েছে , “মীরজাফর, বেইমান, গদ্দারদের কোনো ঠাঁই নেই তৃণমূলে।”এছাড়াও আরেকটি পোস্টারে লেখা রয়েছে, “দল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং যুবরাজ অভিষেক ব্যানার্জীর কাছে দলের কর্মীদের আবেদন সেচ দপ্তরে তদন্ত কমিটি বসিয়ে দুর্নীতিগ্রস্ত গদ্দারদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার করতে হবে।”পোস্টারের নীচে লেখা রয়েছে ‘প্রচারে: তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী বৃন্দ’কয়েকদিন আগে ডোমজুড়ের সলপেও এই‌ ধরণের পোস্টার পড়েছিলো।

স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীরা বলছেন যে, “ভোটের আবহে রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় যেভাবে দলনেত্রী এবং তৃণমূল সম্পর্কে কুৎসা রটিয়ে ছিলেন তার পরে তাঁকে দলে ফেরানোর কোন প্রশ্নই ওঠে না।”

Related Articles

Back to top button