“আধুনিক ভারতে হিন্দুত্ববাদের কোন জায়গা নেই”- বললেন আসাউদ্দিন

“আধুনিক ভারতে হিন্দুত্ববাদের কোন জায়গা নেই”- বললেন আসাউদ্দিন

নিজস্ব প্রতিবেদন: রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের প্রধান মোহন ভাগবত আসামে গিয়েছিলেন। আসামে গিয়ে তিনি একটি বই প্রকাশনী অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেছিলেন। মূলত এই বইটিতে সাম্প্রতিক এন‌আরসি এবং সিএএ বিষয়ক কথা লেখা রয়েছে। মোহন ভাগবত এই বিষয়ে বেশ কিছু বক্তব্য পেশ করেছেন আসামের মাটি থেকে।

তিনি বলেছেন,”বর্তমান পরিস্থিতিতে আমাদের স্বভাব হয়ে দাঁড়িয়েছে যে কোন বিষয় নিয়েই বিবাদে লিপ্ত হওয়া। কিন্তু আমাদের মনে রাখতে হবে আমাদের সত্যকে ভয় পেলে চলবে না। ভারতের মাটিতে আমরা বৈচিত্রের মাঝে ঐক্য দেখেছি। আজ আমাদের দেশে নানান সম্প্রদায়ের মানুষজন বসবাস করেন ।

আরও পড়ুন-“প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে তদন্ত করা হোক।”- পেগাসাস কান্ডে দাবি করলেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী

একটা বিষয় আমাদের কাছে পরিষ্কার সেটা হল গত ১৯৩০ সাল থেকে ভারতে ক্রমাগত মুসলিমদের সংখ্যা ব্যাপক হারে বাড়ানোর প্রচেষ্টা করা হচ্ছে। অসম, সহ পাঞ্জাব, পশ্চিমবঙ্গ এবং অন্যান্য রাজ্যেও ঠগক এরকমই পরিস্থিতির সৃষ্টি করা হচ্ছে। ওদের সংখ্যা বাড়ানোর চেষ্টা করা হচ্ছে যাতে ওরা সংখ্যায় বেড়ে গিয়ে আমাদের ভারতকে আরেকটা পাকিস্তান বানিয়ে দেয়। পশ্চিমবঙ্গ, অসম, পাঞ্জাবে করিডর বানাতে চেয়েছিল পাকিস্তান।

এখনো এই সমস্ত জায়গায় মুসলিম জনসংখ্যা বাড়ানোর জন্য সহায়তা করা হচ্ছে। যাতে ওদের আধিপত্য বিস্তার হবে এবং বাকিরা ওদের দয়ায় জীবন কাটাবে। তাই অবিলম্বে দেশের মধ্যে নাগরিকত্ব আইন চালু করা দরকার, এবং জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ আইন‌ও চালু করা দরকার।”এদিকে মোহন ভাগবতকে আক্রমণ করে টুইট করেছেন মিম প্রধান আসাউদ্দিন ওয়েইসি।

আরও পড়ুন-মুখ্যমন্ত্রীকে গোমাংস উপহার দেওয়ার ইচ্ছা। মহিলাকে জেলহাজতে পাঠাল অসম পুলিশ।

তিনি বলেছেন, “মোহন ভাগবত বলেছেন যে মুসলিমদের জনসংখ্যা বাড়ানোর চেষ্টা করা হচ্ছে সেই ১৯৩০ সাল থেকে। আমাদের যদি ডিএনএ একই হয় তাহলে আলাদা করে আমাদের জন্য গণনা করা হচ্ছে? ১৯৫০ সাল থেকে ২০১১ সালের মধ্যে আমাদের সংখ্যা অনেকটাই হ্রাস পেয়েছে।”এছাড়াও আরেকটি টুইটে আসাউদ্দিন বলেছেন, “সংঘের মধ্যে শুধু মুসলিম বিরোধিতা রয়েছে আর তারা এই বিদ্বেষ গোটা সমাজে ছড়িয়ে দিতে চাইছে।

এই মাসের শুরুতে মোহন ভাগবত বলেছিলেন আমরা এক। এর ফলে তাঁর সমর্থকরা যথেষ্ট ক্ষুদ্ধ হয়েছিলো। তাই আবার তিনি মুসলিমদের বিরোধিতায় নেমেছেন। কিন্তু আধুনিক ভারতে হিন্দুত্বের কোনো জায়গা নেই।”