নিউজপলিটিক্সরাজ্য

“মানুষের বিপদ বাড়িয়ে ভোটের দরকার নেই। বিজেপি রাজ্যে উপনির্বাচন চায়না।”- করোনাকালে উপ নির্বাচনের বিরুদ্ধে সরব বিজেপি।

নিজস্ব প্রতিবেদন: বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু কয়েকদিন আগেই বলেছিলেন, ‘করোনার এই ভয়াবহ পরিস্থিতিতে বিজেপি উপনির্বাচন চায়না।’
সায়ন্তন বসু উপনির্বাচনের পরিপ্রেক্ষিতে বলেছেন, “শুধুমাত্র একজনকে মুখ্যমন্ত্রী পদে আসীন হতে হবে বলে করোনার এই দ্বিতীয় ঢেউয়ের মাঝে মানুষের সুরক্ষার কথা চিন্তা না করে নির্বাচন করতে হবে এটি সম্পূর্ণ নিরর্থক। সেরকম দরকার হলে ৬ মাস করে দুইজন মুখ্যমন্ত্রী আসীন হতে পারেন। কিন্তু এটি মুহূর্তে উপনির্বাচনের কোন দরকার নেই।”

রাজ্য বিজেপির সহ-সভাপতি জয়প্রকাশ মজুমদার বলেছেন, “পশ্চিমবঙ্গে জরুরি অবস্থার থেকেও বর্তমানে খারাপ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। ‌ উপনির্বাচন হলে আবার করোনার ভয়াবহ পরিস্থিতিতে সেই জরুরী অবস্থা জারি হবে। এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে পশ্চিমবঙ্গের মানুষ মেনে নিচ্ছেন যে এই পরিস্থিতি থেকে তাদের রেহাই নেই।”আগামী মাসে লালবাজার অভিযানের হুঁশিয়ারি দিয়েছে বিজেপি।

আরও পড়ুন-“বিজেপি বিরোধী কোনো মঞ্চ থেকে কংগ্রেসকে বাদ দেওয়া যাবে না।”- বললেন এনসিপি সুপ্রিমো শরদ পাওয়ার।

এছাড়াও কসবার ভুয়ো টীকা কান্ডে কেন্দ্রীয় এজেন্সি দিয়ে তদন্ত করানোর দাবি তুলেছেন সায়ন্তন বসু।সায়ন্তন বসুর এই মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে তৃণমূল সাংসদ সুখেন্দু শেখর রায় বলেছেন,”নির্বাচনের আগে ব্রিগেডের সমাবেশ করে করোনা বিধি লঙ্ঘন করেছে বিজেপি। এখন বিজেপি উপনির্বাচনে ভয় পাচ্ছে কেন? ওদের গণতন্ত্রের উপর কোন বিশ্বাস নেই তাই ওরা নির্বাচনে ভয় পাচ্ছে।

আরও পড়ুন-“ফিরহাদ-শান্তনুর বিরুদ্ধে কেন অতিমারি আইনে অভিযোগ দায়ের হয়নি?”- প্রশ্ন তুললেন সৌমিত্র খাঁ।

ওরা নিজেরাই করোনা বিধি ভেঙেছিল , এখন নোংরা রাজনীতি করছে। তৃণমূল ব্রিগেডে করোনা বিধি ভেঙে সমাবেশ করেনি, ওটা বিজেপিই করেছিলো। তৃণমূল সরকার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে করোনার এই দ্বিতীয় ঢেউয়ের মোকাবিলা করার দিকে যথেষ্ট উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। খুব শীঘ্রই রাজ্যে তথা দেশে তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়েছে বলে সর্তকতা জারি করেছেন বিজ্ঞানীরা।

এই পরিস্থিতিতে যারা ক্রমাগত হুমকি দিয়ে চলেছেন, তারা নিম্নরুচির মানসিকতার পরিচয় দিচ্ছেন এবং জনবিরোধী ভূমিকা তুলে ধরছেন। এই নোংরা রাজনৈতিক চিন্তা-ধারা সমাজকে কলুষিত করছে।”

Related Articles

Back to top button