নিউজটেক নিউজরাজ্য

“দীঘায় হতে চলেছে মেরিন ড্রাইভ, হাউসবোট, এবং আরো অন্যান্য আকর্ষণ”- বললেন পর্যটনমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদন: কয়েক সপ্তাহ আগেই ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের ধাক্কায় রীতিমতো ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে দীঘা মন্দারমনি উপকূল। নিউ দীঘা, ওল্ড দীঘা, মন্দারমনি উপকূল এবং দীঘার অন্যান্য উপকূল গুলি রীতিমতো বিপর্যস্ত হয়েছে এই ঘূর্ণিঝড়ের ধাক্কায়। দীঘা উপকূলবর্তী অঞ্চলে গুলিতে সমুদ্রের জল ঢুকে বিস্তর ক্ষয়ক্ষতির সৃষ্টি করেছে। বাঙালির সাধের দীঘা উপকূল কয়েক বছর আগেই ভালোভাবে তৈরি করিয়ে দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

সমুদ্রের ধার ঘেঁষে সুদৃশ্য রাস্তা, ওল্ড দীঘায় বিশ্ববাংলা সুদৃশ্য গেট। এবং সমুদ্রের ধারের মার্বেল বসানো গার্ডওয়াল সবকিছুই ধ্বংসস্তুপে পরিণত করে দিয়েছে এই ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় এর দাপট। এছাড়াও নিউ দীঘা এবং ওল্ড দীঘার নবগঠিত মার্কেট কমপ্লেক্স রীতিমতো ভাঙচুর করে দিয়েছে এই ঘূর্ণিঝড়।এবার করোনা পরিস্থিতিতে পর্যটন শিল্পকে আবার চাঙ্গা করতে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার লক্ষ্যে আসরে নেমেছে রাজ্যের পর্যটন বিভাগ।

আরও পড়ুন-“আমিও প্রতারিত হয়েছি”- জানালেন দেবাঞ্জনের সঙ্গী সুস্মিতা

পর্যটন মন্ত্রী ইন্দ্রনীল সেন আবার উদ্যোগী হয়েছেন রাজ্যের পর্যটন শিল্পকে স্বাভাবিক ভাবে গড়ে তুলতে। পশ্চিমবঙ্গের পর্যটন কে সারা বিশ্বের অন্যতম উল্লেখযোগ্য পর্যটন হিসেবে গড়ে তুলতে বদ্ধপরিকর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে ইন্দ্রনীল সেন উত্তরবঙ্গ থেকে দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্র গুলি পরিদর্শন করতে শুরু করে দিয়েছেন।গতকাল তিনি গিয়েছিলেন ঘূর্ণিঝড় বিধ্বস্ত দীঘায়।

সেখানে গিয়ে তিনি সমস্ত পরিস্থিতি খতিয়ে দেখেছেন। বিভিন্ন হোটেল মালিকদের সাথেও কথা বলেছেন। আগামী জুলাই মাসেই যাতে দীঘাকে আবার পর্যটনের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া যেতে পারে, সেই উদ্দেশ্যে অতি দ্রুত দীঘার পুনর্গঠন এর কাজ চলছে জোর কদমে।ইন্দ্রনীল সেন গতকাল বৈঠক করেছেন দীঘা, তাজপুর এবং মন্দারমনি হোটেল অ্যাসোসিয়েশনের সাথে।

আরও পড়ুন-“ভারতীয় নৌ সেনা সর্বদাই যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত”- চিনকে হুঁশিয়ারি প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের

তিনি হোটেল ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানিয়েছেন যে দীঘায় খুব শীঘ্রই পর্যটন শিল্পের উন্নয়নের জোয়ার আনা হবে এবং সেইসাথে করোনা পরিস্থিতির কিভাবে মোকাবিলা করা যায় সেই দিকটিও গুরুত্বসহকারে দেখা হবে । ইন্দ্রনীল সেন জানিয়েছেন যে দীঘায় একটি মেরিন ড্রাইভ গড়ে তোলা হবে এবং এই মেরিন ড্রাইভের তিনটি সেতু এসে একসাথে জুড়বে। এছাড়াও দিঘাতে রাখা হবে দুটি ভাসমান হাউস বোট, ভাসমান রেস্তোরাঁ। এই হাউসবোটে পর্যটকরা তাদের অবসর সময় কাটাতে পারবেন।

আরও পড়ুন-জাল ভ্যাকসিনের কারবার ছড়িয়ে পড়েছে মুম্বাইয়েও। হাতেনাতে গ্রেফতার দুই ডাক্তার সহ মোট ১০ জন।

দীঘা কে সম্পূর্ণ আকর্ষণীয় রূপে গড়ে তোলা হবে। দীঘার পাশাপাশি নৈকালি পর্যটন কেন্দ্র সাজিয়ে তোলা হবে বলে জানিয়েছেন পর্যটনমন্ত্রী ইন্দ্রনীল সেন। ‌ এছাড়াও তিনি জানিয়েছেন দীঘা ,তাজপুর, মন্দারমনি, শংকরপুর এবং শৌলাকে সুদৃশ্য দুই লেনের মেরিন ড্রাঈভ দিয়ে যুক্ত করা হবে। এর ফলে সমুদ্রের ধার দিয়ে তাদের যানবাহন নিয়ে পর্যটকরা খুব সহজেই কাঁথি থেকে দীঘা পৌঁছে যেতে পারবেন।

Related Articles

Back to top button