নিউজপলিটিক্সরাজ্য

তৃণমূল বিধায়ককে জুতো পরিয়ে দিলেন কর্মীরা। ভাইরাল ভিডিও।

নিজস্ব প্রতিবেদন: অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায় দলীয় নেতা নেত্রীদের তুষ্ট করতে তাদের নির্দেশমতো নানান কাজ সম্পাদন করে থাকেন দলীয় কর্মীরা। দলের স্তম্ভ হল দলীয় কর্মীরা। তাঁদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় দলের সংগঠন হয়ে ওঠে মজবুত। কিন্তু প্রতিটি নেতা নেত্রীদের ভুললে হবে না যে তাঁরা জননেতা।

মানুষের সেবাই তাদের কাজ। কিন্তু এই সমস্ত কিছু ভুলে অনেকসময় হুকুম তামিলে ব্যস্ত হয়ে পড়েন দলের নেতা এবং নেত্রীরা। আবার বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দেখা গিয়েছে তাদের সন্তুষ্ট করতে যেকোনো ভাবে তাদের তোষামোদ করতে সচেষ্ট হন দলীয় কর্মীরাও। ঘটনা ঘটেছে বাংলার মাটিতে যারা রাজনীতিতে অত্যন্ত চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে। ‌

আরও পড়ুন-“আমাদের নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, সেনাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়”- ত্রিপুরায় পৌঁছে মহাজোটের বার্তা দিলেন কুনাল ঘোষ

বেশ কয়েক বছর আগে প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়ক রচপাল সিং এর জুতোর ফিতে বেঁধে দিতে দেখা গিয়েছিল তাঁর নিরাপত্তা কর্মীকে । ঠিক এ রকমই একটি ঘটনা ঘটেছে বাংলার বুকে।গতকাল বর্ধমানের ৩৫ নম্বর ওয়ার্ডে এলাকার তৃণমূল বিধায়কের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে যে তিনি দলীয় কর্মীদের দিয়ে জুতো পরেছেন। এই সংক্রান্ত একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

‌ জানা গিয়েছে তৃণমূল বিধায়ক খোকন দাস এলাকায় একটি রক্তদান শিবিরে অংশগ্রহণ করতে গিয়েছিলেন। সেখানেই কিশোর কুমারের জন্মদিন উপলক্ষে ওই ৩৫ নম্বর ওয়ার্ডে রক্তদান শিবিরে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেছিলেন খোকন দাস। জাতীয় পতাকা উত্তোলন করার সময় তিনি তাঁর জুতো খুলে রেখেছিলেন। পতাকা উত্তোলন করা হয়ে গেলে খোকন দাসকে জুতো পরিয়ে দিতে দেখা যায় দলীয় দুই কর্মীকে।

আরও পড়ুন-“ভারত বাঁচাতে দিদিকে আমরা চাই।”- এবার বামেদের গড় কেরালা’তে নতুন করে যাত্রা শুরু করল তৃণমূল কংগ্রেস।

এবং খোকন দাস‌ও এই সহায়তা মেনে নেন। এই ঘটনাটিকে কেন্দ্র করে রাজ্যজুড়ে যথেষ্ট চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। বিশেষ করে রাজ্য বিজেপি এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে তৃণমূলের বিরুদ্ধে ব্যাপক আক্রমণ শানিয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে খোকন দাসকে তীব্র কটাক্ষ শুরু করেছেন নেটিজেনরা।

আরও পড়ুন-“ত্রিপুরায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে”- বিজেপির বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করল তৃণমূল।

তবে এই প্রসঙ্গে খোকন দাস বলেছেন,”জুতো আমি নিজেই পরেছি। একটু সমস্যা হ‌ওয়ার দরুণ ওরা সাহায্য করেছিলো। তবে ওরা আমার ভাইপো, ওরা দলীয় কর্মী নয়। বিজেপি এই ছোট্ট বিষয়টিকে কেন্দ্র করে বিভ্রান্তিকর তথ্য রটিয়ে বেড়াচ্ছে।”

তবে রাজ্য বিজেপি এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে খোকন দাসের বিরুদ্ধে ক্রমাগত সুর চড়িয়ে চলেছে।

Related Articles

Back to top button