কাঁচ, প্লাস্টিক, স্টিলে এক সপ্তাহের‌ও বেশী সময় বেঁচে থাকতে সক্ষম করোনা ভাইরাস।

কাঁচ, প্লাস্টিক, স্টিলে এক সপ্তাহের‌ও বেশী সময় বেঁচে থাকতে সক্ষম করোনা ভাইরাস।

নিজস্ব প্রতিবেদন: পৃথিবীতে আবার প্রবল শক্তি সঞ্চয় করে আঘাত হেনেছে করোনার দ্বিতীয় পর্যায়ের ঢেউ। ব্রিটেন থেকে শুরু করে আমেরিকা,কানাডা, ভারতে ভয়াবহভাবে আবার ছড়িয়ে পড়ছে সংক্রমণ। ‌ সারা বিশ্বজুড়ে বহু মানুষের প্রাণ গিয়েছে এই ভাইরাসের প্রভাবে। ভারতেও যথেষ্ট তাণ্ডব চালাতে শুরু করেছে এই ভাইরাস। প্রতিদিন আক্রান্ত হচ্ছেন অগুনতি মানুষজন। কিন্তু এখনও বহু মানুষের মধ্যে সর্তকতা আসছে না।

অনেককেই দেখা যাচ্ছে তারা মাস্ক পরছেন না, শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখছেন না । দিন দিন বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা।এমতাবস্থায় ল্যানসেটের গবেষণায় জানা গিয়েছে যে আক্রান্ত ব্যক্তির হাঁচি থেকে শুরু করে নিঃশ্বাস , কাশিতে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়তে পারে বাতাসে। ‌ সংক্রামিত ব্যক্তি চিৎকার করে কথা বললে অথবা গান করলেও বায়ুর মধ্যে মিশে যায় এই ভাইরাস। সারফেস সারভাইভালের গবেষণায় জানা গিয়েছে , ৯৯% ক্ষেত্রে দেখা গিয়েছে ঘরবন্দী থাকলে এই ভাইরাসের সংক্রমণ অনেকটাই কমে যাচ্ছে।

আরও পড়ুন-করোনা আক্রান্ত সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তী

সর্দি-কাশি থেকে এই ভাইরাস সবথেকে বেশি ছড়িয়ে পড়ছে মানুষের মধ্যে।প্রতিটি মানুষকে অবশ্যই মাস্ক ব্যবহার করা উচিত, স্যানিটাইজার ব্যবহার করা উচিত, এবং সব থেকে যেটা প্রধান পালনীয় কর্তব্য সেটা হলো শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা।ভারতীয় গবেষকরা বলেছেন, করোনাভাইরাস কে প্রতিহত করতে গেলে বায়ুবাহিত মাধ্যম এবং সারফেস ট্রান্সমিশন এর বিষয়টি খুবই মনোযোগ এর সাথে পর্যবেক্ষণ করতে হবে।

ভারতীয় গবেষকরা বলেছেন যে ল্যানসেটের গবেষণা নিয়ে আরো পর্যবেক্ষণের দরকার রয়েছে। এছাড়াও ভারতীয় গবেষকরা বলেছেন যে, বায়ুবাহিত মাধ্যমের পাশাপাশি সারফেস ট্রান্সমিশন সম্পর্কে প্রতিটি মানুষকে ওয়াকিবহাল থাকতে হবে । কাঁচ থেকে শুরু করে প্লাস্টিক, স্টিলে করোনার ভাইরাস প্রায় এক সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে বেঁচে থাকতে পারে।