নিউজ

“জুলাই আগস্টেই আসতে চলেছে করোনার তৃতীয় ঢেউ”- বললেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদন: সারা দেশ জুড়ে মৃত্যুর তাণ্ডব চালাচ্ছে করোনাভাইরাস। এখনো পর্যন্ত সারাদেশে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১ কোটি ৮৭ লক্ষ ৫৪ হাজার ৯৮৪ জন। মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েছেন ২ লক্ষ ৮ হাজার ৩১৩ জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১ কোটি ৫৩ লক্ষ ৭৩ হাজার ৭৬৫ জন। গত ২৪ ঘন্টায় করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লক্ষ ৭৯ হাজার ২৫৭ জন। মৃত্যু হয়েছে ৩৬৪৫ জনের। বর্তমানে সক্রিয় করোনা আক্রান্ত রোগী রয়েছে ৩০ লক্ষ ৮৪ হাজার ৮১৪ জন।

পশ্চিমবঙ্গের অবস্থাও যথেষ্ট শোচনীয় হয়ে রয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের মাটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৭ লক্ষ ৭৬ হাজার ৩৪৫ জন। মৃত্যু হয়েছে ১১ হাজার ৮২ জনের। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৬ লক্ষ ৬৪ হাজার ৬৪৮ জন। করোনা কাড়ছে একের পর এক মূল্যবান প্রাণ। সেই সাথে দেখা দিয়েছে দেশজুড়ে অক্সিজেনের অভাব। সেই সাথে রোগীর আধিক্যে অমিল‌ হচ্ছে হাসপাতালের বেড। সময় মত চিকিৎসা না পেয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছেন অসংখ্য করোনা রোগীরা।

আরও পড়ুন-হাসপাতালে পাননি বেড। অ্যাম্বুলেন্সেই মৃত্যু করোনা রোগীর।

বিভিন্ন জায়গায় দেখা গিয়েছে অক্সিজেনের প্রবল সঙ্কট। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশগুলি এই সঙ্কটজনক পরিস্থিতিতে ভারতের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে। পৃথিবীর উন্নত দেশগুলি ছাড়াও ছোট দেশগুলিও ভারতের এই ভয়াবহ পরিস্থিতিতে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। ভ্যাকসিন, অন্যান্য চিকিৎসার সরঞ্জাম সহ অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটর পাঠাচ্ছে বিভিন্ন দেশ।প্রথম ঢেউয়ের রেশ কাটতে না কাটতেই সজোরে আঘাত করেছে দ্বিতীয় পর্যায়ের ঢেউ।

এবার দেশে আঘাত করতে চলেছে তৃতীয় পর্যায়ের ঢেউ। এমনটাই মনে করছেন মহারাষ্ট্রের স্বাস্থ্যমন্ত্রী রাজেশ তোপে। গতকালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী মহারাষ্ট্রে ২৪ ঘন্টায় মোট ৬৬ হাজার ১৫৯ জন আক্রান্ত হয়েছেন। ২৪ গন্টায় মৃত্যু হয়েছে ৭৭১ জনের। তিনি বলেছেন যে আগামী জুলাই অথবা আগস্টে মহারাষ্ট্রে আছড়ে পড়তে পারে করোনার তৃতীয় ভয়াবহ ঢেউ।

এই তৃতীয় পর্যায়েও যথেষ্ট প্রাণহানি ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা করেছেন রাজেশ তোপে। এমনিতেই মহারাষ্ট্রের অবস্থা যথেষ্ট ভয়াবহ। দিল্লি পশ্চিমবঙ্গের মতো মহারাষ্ট্রেও অক্সিজেনের আকাল দেখা দিয়েছে । অক্সিজেনের অভাবে মৃত্যু ঘটেছে বহু করোনা রোগীর।

Related Articles

Back to top button