নিউজ

পরিচারিকাদের কাপড় কাচার, ঘর পরিষ্কার করার প্রশিক্ষণ দেবে রাজ্য সরকার। প্রশিক্ষণ শেষে পাওয়া যাবে সার্টিফিকেট

নিজস্ব প্রতিবেদন: বর্তমানে ব্যস্ততম জীবনে মানুষ যেখানে দম ফেলার ফুরসত পায় না সেখানে তাদের সংসার দেখভাল করার জন্য পরিচারিকার দরকার পড়ে। ‌ কিন্তু অনেক সময় দেখা যায় বাড়ির পরিচারক এবং পরিচারিকারা অত্যাধুনিক যন্ত্র গুলিকে ঠিকমতো নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন না। যেমন বর্তমানে ওয়াশিং মেশিন, ভ্যাকুয়াম ক্লিনার, মিক্সার গ্রাইন্ডার, মাইক্রোওভেন, টোস্টার ইত্যাদি অত্যাধুনিক যন্ত্রের চাহিদা বহুল পরিমাণে বৃদ্ধি পাচ্ছে ছোট থেকে বড় নানান সংসার গুলিতে।

অনেকক্ষেত্রে দেখা যায় বাড়ির পুরুষ এবং স্ত্রী কর্মরত রয়েছেন সেখানে তাদের পরিবারকে দেখার জন্য পরিচারিকারা রয়েছেন, কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে পরিচারিকারা অত্যাধুনিক এই যন্ত্র গুলিকে ঠিকমতো চালাতে পারছেনা যার ফলে নানান সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছেন তারা। এই সমস্যা সমাধানে এগিয়ে এসেছে বাংলার রাজ্য সরকার। ‌ শহরাঞ্চলে এই সমস্যা অত্যাধিক পরিমাণে দেখা গিয়েছে।

আরও পড়ুন- মুম্বাইয়ে গিয়ে স্বপ্নের নায়ক সলমন খানের সাথে দেখা করলেন মীরাবাঈ চানু

এই সমস্যা সমাধানে একটি যুগান্তকারী ঘোষণা করেছে বাংলার শ্রম দপ্তর। এবার রাজ্যজুড়ে পরিচারিকাদের প্রশিক্ষণ দেওয়ার বন্দোবস্ত করতে চলেছে রাজ্য সরকারের শ্রম দপ্তর।  গত বুধবার দক্ষিণ ২৪ পরগনার জয় হিন্দ সিনেমাহলে পরিচারিকা দের উদ্দেশ্যে একটি প্রশিক্ষণ শিবির এর আয়োজন করেছিল শ্রম দপ্তর। এই অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেছিলেন বিধানসভার অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়, এছাড়াও প্রধান অতিথি হিসেবে আমন্ত্রিত ছিলেন শ্রম দপ্তরের মন্ত্রী বেচারাম মান্না, সহ আরো বিশিষ্ট কয়েকজন। জানা গিয়েছে এই প্রশিক্ষণ শিবিরে প্রায় ১০০ জনের মতো পরিচারিকাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। ‌ ইতিমধ্যে রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় জেলায় এই প্রশিক্ষণ শিবির এর আয়োজন করতে চলেছে শ্রম দপ্তর।

জানা গিয়েছে এবার থেকে এই প্রশিক্ষণ হবে তিনদিনের । প্রতিদিন ১২ ঘণ্টা করে ক্লাস হবে এই প্রশিক্ষণ শিবিরে । সেখানে পরিচারিকাদের শেখানো হবে বিভিন্ন যন্ত্রের ব্যবহার, আদব-কায়দা, কাজ করার পদ্ধতি, ব্যাঙ্কের প্রাথমিক কাজকর্ম গুলি। এছাড়াও শেখানো হবে বিভিন্ন অত্যাধুনিক যন্ত্রের ব্যবহার যেগুলি গৃহস্থালির কাজে প্রতিদিন ব্যবহৃত হয়। ‌ তিন দিনের এই প্রশিক্ষণ শেষে পরিচারিকাদের হাতে সরকারের পক্ষ থেকে দেওয়া হবে ২৫০ টাকা ভাতা এবং একটি সার্টিফিকেট।

Related Articles

Back to top button