বাম শিবিরে দুশ্চিন্তার ছায়া। আব্বাসকে নিয়ে সতর্ক হচ্ছে বাম সংগঠন।

বাম শিবিরে দুশ্চিন্তার ছায়া। আব্বাসকে নিয়ে সতর্ক হচ্ছে বাম সংগঠন।

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের বাংলা দখলের লড়াইয়ে অনেকটাই পিছিয়ে রয়েছিল বাম দল। কিন্তু বর্তমানে যুব সমাজের মধ্যে অনেকটাই জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পেয়েছে বামেদের। একুশের ভোটে বিজেপি এবং তৃণমূল এর চোখে চোখ রেখে লড়াই করার জন্য কংগ্রেস এবং আই‌এস‌এফের সাথে গাঁটছড়া বেঁধে লড়াইয়ে নেমেছে সিপিএম। আই‌এস‌এফ অর্থাৎ ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্টের প্রতিষ্ঠাতা আব্বাস সিদ্দীকীর সাথে ক্রমশ‌ই দূরত্ব বাড়ছে বাম এবং কংগ্রেসের।

এদিকে আবার প্রকাশ্যে উপস্থাপিত হয়েছে আইএস‌এফ-কংগ্রেস দ্বন্দ্ব। মুর্শিদাবাদের রাণীনগর বিধানসভার অন্তর্গত একটি জনসভায় গত পরশুদিন অংশগ্রহণ করেছিলেন আব্বাস সিদ্দিকী। ওই জনসভা থেকে তিনি কড়া আক্রমণ শানিয়েছেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরীকে। তিনি বলেছেন,”মুর্শিদাবাদে অনেক দিন রাজত্ব করেছে কংগ্রেস, কিন্তু এখানে কোন রকম উন্নয়ন করেনি তারা। একটা বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত করে দেয়নি।

আরও পড়ুন-“এটা রীতি বিরোধী”- কোভিড নিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত বৈঠক সরাসরি সম্প্রচার করায় কেজরিওয়ালের উপর ক্ষুব্ধ প্রধানমন্ত্রী। ক্ষমা চাইলেন কেজরিওয়াল।

তাই এবার এখান চিহ্নে ভোট দিয়ে রানীনগর কেন্দ্রে আইএসএফ প্রার্থী মাসুম রেজা কে আপনারা জয়ী করবেন । তাই আইএসএফের সঙ্গে কংগ্রেস মুর্শিদাবাদে জোট করেনি। আমরা মুর্শিদাবাদে তিনটি এবং মালদায় দুটি আসন চেয়েছিলাম, কিন্তু অধীর চৌধুরী ওই আসন আমাদের দেয়নি। ‌ তাই আমরা ওখানে প্রার্থী দিয়েছি। স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে বিজেপির সঙ্গে অধীর চৌধুরীর সমঝোতা হয়ে গিয়েছে।”

আব্বাসের জনপ্রিয়তা যথেষ্ট বৃদ্ধি পেয়েছে জনগণের মাঝে। এখন‌ই আব্বাসকে নিয়ে কিছু বলতে চাইছে না বাম দল। এখনো বেশ কিছু জায়গাতেই বাম এবং কংগ্রেসের বিরুদ্ধে প্রার্থী দিয়েছে আই‌এস‌এফ, তাই এই আব্বাসকে নিয়ে যথেষ্ট সতর্কতা অবলম্বন করছে বাম সংগঠন। আব্বাসের জনপ্রিয়তা কিছুটা হলেও ঈর্ষার জন্ম দিয়েছে বিরোধী দলগুলোর মধ্যে।