নিউজটেক নিউজরাজ্য

নেননি কোভিড ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ। অথচ মোবাইলে এসে গেলো দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার সার্টিফিকেট

নিজস্ব প্রতিবেদন: সারা দেশ জুড়ে ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে করোনা ভাইরাস। দ্বিতীয় ঢেউ বর্তমানে অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে আসলেও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সর্তকতা জারি করেছে যে খুব শীঘ্রই তৃতীয় ঢেউ আছে পড়তে চলেছে ভারতের বুকে। ‌ যার ফলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান ট্রেডরস আধানোম ঘেব্রিয়েসাস বলেছেন খুব জলদিই সমস্ত মানুষের যদি টীকাকরণ হয়ে যায়, তাহলে তৃতীয় ঢেউয়ের অভিঘাত ততটা জোরালো হবে না। কিন্তু রাজ্য তথা দেশে ভ্যাকসিনের অপ্রতুলতা দেখা দেওয়ায় যথেষ্ট সংকটজনক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

বিশেষ করে এই রাজ্যে এখনও পর্যন্ত অর্ধেক মানুষ কেও ভ্যাকসিন দেওয়া সম্ভব হয়নি। এই আবহের মধ্যে এই চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটেছে দুর্গাপুরে। এক ব্যক্তি ভ্যাকসিন এর দ্বিতীয় ডোজ না নিয়েই মোবাইলে পেয়ে গিয়েছেন দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার সার্টিফিকেট। জানা গিয়েছে ওই ব্যক্তির নাম হল শান্তনু মন্ডল।

আরও পড়ুন-লাগাতার ধর্ষণ ১৪ বছরের কিশোরীকে। সন্তানের জন্ম দিলো কিশোরী। গ্রেফতার ষাটোর্ধ্ব প্রৌঢ়

‌ তিনি দুর্গাপুর ইস্পাত কারখানার একজন কর্মী। তিনি ১০০ দিন আগে ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিয়েছিলেন । দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার জন্য তিনি গত সোমবার স্লট বুক করেছিলেন এবং সেইমতো গত সোমবার তিনি নাচন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভ্যাকসিন নিতে গিয়েছিলেন। কিন্তু ভ্যাকসিন নিতে গিয়ে প্রচণ্ড গরমে স্বাস্থ্য কেন্দ্রের মধ্যে অসুস্থতা অনুভব করেন তিনি।

আরও পড়ুন-এবার কলকাতার নিউ টাউন থেকে ধরা পড়ল ভুয়ো মানবাধিকার সংগঠনের চার প্রতিনিধি।

সাথে সাথে স্বাস্থ্যকর্মীরা তাকে বাড়ি চলে যাওয়ার পরামর্শ দেন। কিন্তু বাড়ি ফিরেই শান্তনু বাবু দেখতে পান তার মোবাইলে দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার সার্টিফিকেট চলে এসেছে। সঙ্গে সঙ্গে তিনি যথেষ্ট উদ্বিগ্ন হয়ে স্বাস্থ্য কেন্দ্রের সাথে যোগাযোগ করলে স্বাস্থ্যকর্মীরা রীতিমতো দোষ চেপে যাওয়ার জন্য তৎপরতা দেখাতে শুরু করে। তাকে জানিয়ে দেওয়া হয় যে মঙ্গলবার দিন তিনি ভ্যাকসিন নিতে পারবেন।

তবে এই বিষয়টি বর্তমানে আইনবিরুদ্ধ বলেই বিবেচিত হবে। তাই শান্তনু বাবু এই বিষয়টি জানিয়েছেন ঊর্ধতন কর্তৃপক্ষকে। বিষয়টি সম্পর্কে তদন্ত করছে প্রশাসন। কার গাফিলতিতে এই কাণ্ড ঘটেছে তা খুঁজে বের করা হচ্ছে।

Related Articles

Back to top button