“কেন্দ্রের অদূরদর্শিতার পরিনাম হলো এই ভয়াবহ পরিস্থিতি।”- বললেন তৃণমূলের উপদেষ্টা প্রশান্ত কিশোর।

“কেন্দ্রের অদূরদর্শিতার পরিনাম হলো এই ভয়াবহ পরিস্থিতি।”- বললেন তৃণমূলের উপদেষ্টা প্রশান্ত কিশোর।

নিজস্ব প্রতিবেদন: সারা দেশজুড়ে ভয়াবহ তান্ডব চালাচ্ছে করোনা ভাইরাস। পরপর বহু মানুষের মৃত্যু দেখে আতঙ্কিত দেশবাসী। এই পরিস্থিতিতে বাংলায় সূচনা হয়েছে ভয়াবহ আবহের। বাংলার হাসটাতাল গুলিতে অক্সিজেনের ঘাটতি দেখা দিয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই পরিস্থিতির জন্য সরাসরি দায়ী করেছেন কেন্দ্রীয় সরকারকে। প্রধানমন্ত্রীর উপর দোষ চাপিয়ে তিনি বলেছেন, “৬৫% করোষার ভ্যাকসিন বিদেশে পাঠিয়ে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

গুজরাট ৬০% ভ্যাকসিন পেয়েছে যেখানে অন্যান্য রাজ্যগুলি ভ্যাকসিন পেয়েছে মাত্র ১০% থেকে ১৫%। এছাড়াও প্রধানমন্ত্রী বাংলার অক্সিজেন সাপ্লাই চেইন কে উত্তরপ্রদেশে নিয়ে চলে যাচ্ছেন।“কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীও ভারতের বৃদ্ধিপ্রাপ্ত করোনা সংক্রমনের পরিপ্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় সরকারের উপর দোষ চাপিয়ে দিয়েছেন। এদিকে তৃণমূলের মুখ্য উপদেষ্টা প্রশান্ত কিশোর টুইটারে সমালোচনা করেছেন কেন্দ্রীয় সরকারের।

আরও পড়ুন-মদন মিত্রের শারীরিক অবস্থা আপাতত স্থিতিশীল। সিসিইউ থেকে তাঁকে নিয়ে যাওয়া হল জেনারেল‌ বেডে।

প্রশান্ত কিশোর বলেছেন,”ঠিক সময়ে নির্দিষ্ট ব্যবস্থা না নেওয়ার জন্য ভারতের করোনা পরিস্থিতি এতটা ভয়াবহভাবে ছড়িয়ে পড়েছে। করোনার প্রথম বিয়ের সময় কেন্দ্রীয় সরকারের পরিকল্পনাহীন লকডাউন খামখেয়ালিপনার ধরুন বহু মানুষের জীবনে দুর্দশা এবং বিপর্যয় সৃষ্টি হয়েছিল। দ্বিতীয় ঢেউয়ের সময় হাসপাতালে অক্সিজেন এবং ওষুধের, বেডের অভাব এর ফলে ভাইরাস এর থেকেও বেশি মৃত্যু ঘটেছে বাংলায়। কেন্দ্রের অব্যবস্থা এবং অদূরদর্শিতার ফলেই এত মৃত্যু ঘটছে সারাদেশে।”প্রশান্ত কিশোরের এই মন্তব্যের এখনও কোনো প্রতিক্রিয়া জানায়নি রাজ্য বিজেপি।