নিউজপলিটিক্সরাজ্য

ইউপিএসসি’র প্রশ্নপত্রে উল্লেখ করা হল পশ্চিমবঙ্গের ভোট সন্ত্রাসের। তৃণমূল বিজেপির তুঙ্গে দ্বৈরথ

নিজস্ব প্রতিবেদন: UPSC এর প্রশ্নপত্রে উল্লেখ করা হলো বিতর্কিত বিষয়, যেমন কৃষক আন্দোলন রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত কিনা, ভারতের অনুপ্রবেশ সমস্যা, রাজনীতিতে পরিবার ব্যবসায় পরিণত হয়েছে কিনা, এবং সর্বোপরি পশ্চিমবঙ্গের ভোট পরবর্তী হিংসাত্মক ঘটনাবলী।এই সমস্ত বিষয় UPSC এর পরীক্ষায় উল্লিখিত হওয়ায় যথেষ্ট বিতর্কের সূত্রপাত হয়েছে।এমনিতেই আদালতে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন রিপোর্টে জানিয়েছে যে রাজ্যে ভোট পরবর্তী সন্ত্রাস যথেষ্ট মাত্রায় হয়েছে। এই মর্মে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার।

এদিকে হাইকোর্টের ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি রাজেশ বিন্দালের পাঁচ সদস্যের ডিভিশন বেঞ্চ এই মামলার রায়দান বর্তমানে স্থগিত রেখেছে। এই আবহের মধ্যেই UPSC এর পরীক্ষায় সিএপিএফ এর অ্যাসিস্ট্যান্ট কমান্ড্যান্ট পদপ্রার্থীদের প্রশ্ন করা হয়েছে যে ভোট সন্ত্রাস নিয়ে তাদের কি মত সেই বিষয়টি ২০০ টি শব্দের মধ্যে লিখতে হবে। ‌ এছাড়াও প্রশ্নপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে কৃষক আন্দোলন রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত কি না, এর পক্ষে-বিপক্ষে যুক্তি সহকারে একটি প্রবন্ধ লিখতে হবে। ‌ প্রশ্নপত্র দেখলেই যথেষ্ট অবাক হয়েছেন বহু পরীক্ষার্থীরা।

আরও পড়ুন-এবার ৭৫ বছরেই অবসর নেওয়া বাধ্যতামূলক করল সিপিএম নেতৃত্ব।

কিন্তু এই প্রশ্নপত্র ঘিরে তুঙ্গে উঠেছে তৃণমূল-বিজেপি তরজা।তৃণমূলের রাজ্য সাধারণ সম্পাদক কুনাল ঘোষ বলেছেন, “এই বিষয়টি অত্যন্ত অস্বাভাবিক। ‌ পরীক্ষা ক্ষেত্রে রাজনীতি করছে বিজেপি সরকার। কেন্দ্রীয় নীতির পক্ষে কতজন মতামত প্রদান করেছে এটা দেখার জন্যই পরীক্ষার্থীদের এই প্রশ্নের উত্তর লিখতে বলা হয়েছে।

আরও পড়ুন-“জাতীয় মানবাধিকার কমিশন কোথায়?”- ত্রিপুরা কান্ডে প্রশ্ন তুললেন কুণাল ঘোষ

যিনি প্রশ্ন করেছেন তার বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে তদন্ত শুরু হ‌ওয়া উচিৎ এবং এই প্রশ্নপত্র অবিলম্বে বাতিল করা উচিৎ।”এই পরিপেক্ষিতে বিজেপি মুখপাত্র শমীক ভট্টাচার্য বলেছেন, “সিঙ্গুরের আন্দোলনকে রাজ্যে পাঠ্যসূচীর অন্তর্ভুক্ত করেছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। যে সমস্ত বিষয়গুলি ঘটছে সেগুলি সমাজের বিচ্ছিন্ন বিষয় নয়। তাই সমাজে যে কোন বিচ্যুতি সম্পর্কে অবশ্যই পরীক্ষার্থীদের জেনে রাখা উচিৎ।”

তবে রাজ্যের প্রাক্তন ডিজি ভূপিন্দর সিং বলেছেন,”এই সমস্ত বিতর্কিত বিষয় প্রশ্নপত্রে না রাখাই উচিৎ।”

Related Articles

Back to top button