উত্তরপ্রদেশে দ্বিতীয়বার ‘দূত’ পাঠাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। যথেষ্ট চাপে যোগী আদিত্যনাথ।

উত্তরপ্রদেশে দ্বিতীয়বার ‘দূত’ পাঠাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। যথেষ্ট চাপে যোগী আদিত্যনাথ।

নিজস্ব প্রতিবেদন: আবার লক্ষ্ণৌ সফর করতে যাচ্ছেন বিজেপির সাধারণ সম্পাদক বি এল সন্তোষ। আগামী ২১ এবং ২২ শে জুন তিনি লক্ষ্ণৌ যাবেন বলে জানা গিয়েছে।কয়েকদিন আগেই যোগী আদিত্যনাথ কে দিল্লিতে ডেকে পাঠিয়েছিলেন বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। তার সাথে অনেকক্ষণ ধরে বৈঠক করেছেন প্রধানমন্ত্রী এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

উত্তরপ্রদেশের মাটিতে পঞ্চায়েত নির্বাচনে বিজেপি যথেষ্ট খারাপ ফলাফল করেছে। তার উপর করোনার মোকাবিলায় যোগী সরকারের ব্যর্থতা সকলের সামনে উপস্থিত হয়েছে। আগামী বছরেই বিধানসভা ভোট রয়েছে। এই ভোটে যদি বিজেপির ভরাডুবি হয় তাহলে আগামী ২০২৪ এর লোকসভা ভোটে বিজেপির আসন অনেকটাই টলোমলো হয়ে যাবে।

আরও পড়ুন-কলকাতায় ফিরলেন না ধনখড়। আরো একদিন থাকবেন দিল্লিতে।

প্রধানমন্ত্রীর একান্ত ইচ্ছা তার অত্যন্ত বিশ্বস্ত আর কে সিংহকে উত্তরপ্রদেশের উপমুখ্যমন্ত্রী বানানো। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর এই ইচ্ছার বিরুদ্ধাচারণ করছেন যোগী আদিত্যনাথ।রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন যে এই আবহে প্রধানমন্ত্রীর ‘দূত’ লক্ষ্ণৌ যাত্রার মাধ্যমে যথেষ্ট চাপ সৃষ্টি করতে পারেন যোগী প্রশাসনের উপরে। বি এল সন্তোষ লক্ষ্ণৌ গিয়ে বিধানসভা ভোট কি পাখির চোখ করে তার কাজ সম্পাদন করবেন।

আরও পড়ুন-গঙ্গায় ভেসে এলো ২২ দিনের একরত্তি শিশুকন্যা। যাবতীয় দ্বায়িত্ব নিলো যোগী সরকার।

তার হাত ধরে যোগী প্রশাসনের মন্ত্রিসভায় বেশ কিছু পরিবর্তন হতে পারে বলে অনুমান করা হচ্ছে।উত্তরপ্রদেশের বিরোধী দলগুলি বিক্ষোভ দেখিয়েছে যে গত দেড় বছর ধরে দলিত নেত্রী মায়াবতী বকলমে বিজেপির হয়েই কাজ করে গিয়েছেন। বিএসপি পার্টি বর্তমানে মোদী সরকারের কোনো বিরুদ্ধাচারণ করছে না উপরন্তু অখিলেশ যাদবের এসপি দলের বিরুদ্ধে বারবার আক্রমণ শানিয়ে চলেছে।

মায়াবতী এই সময় তার পাঁচ বিধায়ককে বরখাস্ত করেছেন যারা অখিলেশ যাদব এর এসপি পার্টির সাথে যথেষ্ট ঘনিষ্ঠতা রাখছে।এই পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীর দূত বি এল সন্তোষের লক্ষ্ণৌ যাত্রায় যথেষ্ট অস্বস্তি বেড়েছে যোগী আদিত্যনাথের।