নিউজপলিটিক্স

১ লক্ষ পোর্টেবল অক্সিজেন কন্সেন্ট্রেটর কেনার জন্য অর্থ অনুমোদন করলেন প্রধানমন্ত্রী।

নিজস্ব প্রতিবেদন: দেশের করোনা পরিস্থিতি ক্রমেই আরো শোচনীয় হচ্ছে। দিনের পর দিন বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। এরই মধ্যে ভয়াবহ সমস্যা উপস্থিত হয়েছে অক্সিজেনের ঘাটতি কে কেন্দ্র করে। দেশের বিভিন্ন রাজ্যে দেখা দিয়েছে অক্সিজেনের অপ্রতুলতা। অসহায় রোগীরা একটু অক্সিজেনের অভাবে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছেন। উত্তর প্রদেশ থেকে শুরু করে, পশ্চিমবঙ্গ, দিল্লি, মহারাষ্ট্রে তীব্রতর রূপে দেখা দিয়েছে অক্সিজেনের সংকট।

অক্সিজেনের এই সংকট দূর করার জন্য প্রাণপণ চেষ্টা চালাচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার। ইতিমধ্যেই বন্ধু হিসেবে পাশে দাঁড়িয়েছে সৌদি আরব। সৌদি আরব ভারতের উদ্দেশ্যে ৫০০০ অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রেরণ করেছে। ‌ বায়ুসেনার পণ্যবাহী বিমানে সিঙ্গাপুর থেকে আনা হচ্ছে অক্সিজেন কন্টেনার। এই অক্সিজেনের বিপুল ভান্ডার ভারতের কাছে চলে এলে, ভারতের মধ্যে বর্তমান অক্সিজেনের সমস্যা অনেকটাই মিটবে বলে আশাবাদী কেন্দ্রীয় সরকার।

আরও পড়ুন-তীব্র সমালোচনার মুখে পড়ে অবশেষে কোভিশিল্ডের দাম কমালো সিরাম ইনস্টিটিউট

এছাড়াও জার্মানি থেকে আসছে ২৩ টি অত্যাধুনিক ভাম্যমান অক্সিজেন জেনারেটর প্ল্যান্ট যেগুলি প্রতিটি ঘন্টায় ২৪০০ লিটার অক্সিজেন উৎপাদন করতে সক্ষম।এবার পোর্টেবল অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটরের এর জন্য পিএম কেয়ার্স ফান্ড থেকে বিপুল পরিমাণ টাকা অনুমোদন করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।দেশছর এই জরুরি পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে বিবৃতি মারফত জানানো হয়েছে যে , ১ লক্ষ পোর্টেবল অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটর খুব দ্রুততার সাথে সংগ্রহ করতে হবে।

ভারতের যেসব রাজ্যগুলিতে অক্সিজেনের সংকট অত্যন্ত তীব্র আকার নিয়েছে, সেইসব রাজ্যগুলিতে আগে এই কনসেন্ট্রেটর গুলি প্রদান করা হবে । সেই সব রাজ্যগুলিতে এগুলি সবার আগে পাঠানো হবে ।এর ফলে ভারতের বর্তমান এর ভয়াবহ অক্সিজেন সমস্যা অনেকটাই মিটবে বলে আশাবাদী কেন্দ্রীয় সরকার।

দিল্লি থেকে শুরু করে মহারাষ্ট্র এবং পশ্চিমবঙ্গের অনেক সরকারি এবং বেসরকারি হাসপাতালে অক্সিজেনের আকাল দেখা দিয়েছে। হাসপাতালে প্রতিদিন অক্সিজেনের অভাবে মারা যাচ্ছেন অসহায় করোনা রোগীরা। দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল হাতজোড় করে প্রধানমন্ত্রীকে এবং দেশের বড় বড় শিল্পপতিদের অনুরোধ জানিয়েছেন দিল্লি কে অক্সিজেন প্রদানের জন্য। ‌

Related Articles

Back to top button