রাজ্যের কোভিড ভ্যাকসিনের শংসাপত্রে থাকতে চলেছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি।

রাজ্যের কোভিড ভ্যাকসিনের শংসাপত্রে থাকতে চলেছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি।

নিজস্ব প্রতিবেদন: রাজ্য তথা দেশজুড়ে চোখ রাঙাচ্ছে করোষা ভাইরাস। এখনো পর্যন্ত সারা দেশে করোনার গ্রাসে পড়েছেন মোট ২ কোটি ৮৬ লক্ষ ৯৪ হাজার ৮৭৯ জন। মৃত্যু হয়েছে ৩ লক্ষ ৪৪ হাজার ১০১ জনের। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২ কোটি ৬৭ লক্ষ ৯৫ হাজার ৫৪৯ জন। সারা ভারত জুড়ে এখনো অর্ধেক মানুষকেও টীকা দেওয়া সম্ভব হয়নি।
এদিকে এখনো পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গের ১ কোটি ৪১ লক্ষ মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে।

ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে ১.১ কোটি মানুষকে এবং দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে ৪০ লক্ষ মানুষকে। ১১৪ কোটি টাকা খরচ করে মে মাসে ১৮ লক্ষ এবং জুন মাসে আরো ২২ লক্ষ ডোজ কিনেছে রাজ্য।করোনার ভ্যাকসিন নিলেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ছবি দেওয়া শংসাপত্র দিত কো উইন পোর্টাল। এই ভ্যাকসিন নেওয়ার শংসাপত্রের প্রধানমন্ত্রীর ছবি কেন থাকবে তা নিয়ে সরব হয়েছিলেন বিরোধীরা।

আরও পড়ুন-পশ্চিমবঙ্গে টীকার শংসাপত্র মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি।

ভোটের প্রচার এর হাতিয়ার হিসেবে প্রধানমন্ত্রী ছবি দেওয়া শংসাপত্র কে ব্যবহার করছে কেন্দ্রীয় সরকার এমনটাই অভিযোগ তুলেছিলেন দেশের বিরোধী নেতৃত্বরা। কয়েকদিন আগেই ছত্তিশগড় এবং ঝাড়খন্ড সরকার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে যে ১৮ থেকে ৪৪ বছর বয়সীদের টীকা রাজ্য সরকারকেই যখন দিতে হচ্ছে তখন এই টীকার শংসাপত্রের রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী দের ছবি দেওয়া থাকবে। ঠিক এমনই সিদ্ধান্ত নিয়েছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার‌ও।

আরও পড়ুন-মনোজ বাজপেয়ীর ‘ফ্যামিলি ম্যান ২’ তে পিএম‌’এর ভূমিকায় হুবহু মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছায়া।

জানা গিয়েছে এবার থেকে ভ্যাকসিন নিলে স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে যে শংসাপত্র দেওয়া হবে সেই শংসাপত্রে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি এবং বার্তা দেওয়া থাকবে। রাজ্য স্বাস্থ্য বিভাগের অধিকর্তারা জানিয়েছেন, “টিকা নেওয়ার পর রাজ্যের স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে টিকা গ্রহীতার কাছে একটি মেসেজ আসবে। সেই মেসেজে থাকা লিঙ্কে ক্লিক করলেই শংসাপত্র পাওয়া যাবে।

আরও পড়ুন-“অবসরপ্রাপ্ত আমলাদের পুনর্নিয়োগের বাধ্যতামূলক হবে ভিজিল্যান্সের ছাড়পত্র।”- জারি হল নির্দেশিকা।

তবে কেন্দ্রের শংসাপত্র উপভোক্তা এবং স্বাস্থ্য কেন্দ্রের একটি ইউনিক নম্বর উল্লেখ করা থাকে এবং সেই সাথে দ্বিতীয় ডোজের তারিখের উল্লেখ থাকে। কিন্তু রাজ্যের শংসাপত্রে এগুলির উল্লেখ থাকে না। কেন্দ্রের দেওয়া শংসাপত্রে প্রধানমন্ত্রীর ছবি বাঁ দিকে থাকে। রাজ্য যে শংসাপত্র দিচ্ছে তাতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি রয়েছে ডান দিকে।” এছাড়াও জানা গিয়েছে রাজ্যের দেওয়া সার্টিফিকেটে বাংলা এবং ইংরেজিতে লেখা থাকবে, “সুস্থ্য থাকুন, নিরাপদে থাকুন।”