নিউজপলিটিক্সরাজ্য

“রাজীবকে বহিষ্কার করার খবর ভুয়ো”- জানালো রাজ্য বিজেপি

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটের আগে তৃণমূল ত্যাগ করে বিজেপির ছত্রছায়ায় এসেছিলেন বেশকিছু তাবড় তাবড় তৃণমূল নেতারা। তবে তার অনেক আগেই বিজেপি ছত্রছায়ায় চলে এসেছিলেন মুকুল রায়। কিন্তু বিজেপির সাথে দীর্ঘ চার বছরের সম্পর্ক শেষ করে আবার তৃণমূলের প্রত্যাবর্তন করেছেন তৃণমূলের ঘরের ছেলে মুকুল রায়। একুশের ভোটে রাজ্য জুড়ে বিজেপি পর্যুদস্ত হওয়ার পর থেকেই শুরু বদল করেছে বিজেপিতে আসা দল বদলু নেতারা।

তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন ডোমজুড়ের প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়ক রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। এমনিতেই একুশের ভোটে যথেষ্ট সক্রিয় ছিলেন না তিনি। একুশের ভোট পরবর্তী সময়ে বহুবার দল বিরোধী মন্তব্য করে সমালোচনার শীর্ষে আসীন হয়েছিলেন তিনি। তার মন্তব্য তোকে এটা পরিষ্কার প্রমাণ পাওয়া গিয়েছিল যে তিনি আবার তার পুরনো ঘর তৃণমূলে ফিরে যেতে চান।

আরও পড়ুন-আবার খবরের শিরোনামে ত্রিপুরা। এবার তৃণমূলে যোগ দেওয়া বাম কর্মীদের মারধর বিজেপির

কিন্তু মুকুল রায়ের মতো তার ঘর ওয়াপসি এতটা মসৃণ নয়। কারণ ইতিমধ্যেই ডোমজুড়ের মানুষজন তথা তৃণমূল সমর্থকরা রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় কে তৃণমূলে ফিরিয়ে নেওয়ার বিরোধিতা করে রীতিমতো বিক্ষোভ দেখিয়েছে, তাকে গদ্দার, বেইমান আখ্যা দিয়ে ডোমজুড়ের জায়গায় জায়গায় পোস্টার দেওয়া হয়েছে।কিন্তু এই আবহের মধ্যেই কুণাল ঘোষের সাথে সাক্ষাৎ করেছিলেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়, এছাড়াও তিনি তৃণমূলের সর্বভারতীয় সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এর সাথে সাক্ষাৎ করেছিলেন। যার ফলে রাজ্য রাজনীতিতে জল্পনার উদ্রেক হয়েছিল যে আর কিছুদিনের মধ্যেই পাকাপাকিভাবে তৃণমূলে প্রত্যাবর্তন ঘটতে চলেছে রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের।

আরও পড়ুন-“বিমানে গুন্ডা তুলে অভিষেককে খুনের পরিকল্পনা করা হয়েছে।”- অভিযোগ মুখ্যমন্ত্রীর

কিন্তু এই সম্পর্কে সম্পূর্ণ গুজব ছাড়া আর কিছুই নয় তা পরিষ্কারভাবে জানিয়ে দিল রাজ্য বিজেপি। আজ বিজেপি জানিয়েছে যে, “রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় কে দল থেকে বহিষ্কার করার যে খবরটি চাউর হয়েছে, তা সম্পূর্ণ বিভ্রান্তিমূলক। একজন পার্টি সদস্যকে বহিষ্কার করার জন্য দলের মধ্যে একটি শৃঙ্খলা রক্ষা কমিটি তৈরি করেছে বিজেপি, এই খবরটিও বারবার প্রকাশিত হয়ে চলেছে। কিন্তু এটা সম্পূর্ণ ভ্রান্ত একটি রটনা ছাড়া আর কিছুই নয়।

এই ধরনের কোন কমিটি গঠনের কথা কখনো বলা হয়নি।”ফলে কার্যত বারবার রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় দল বিরোধী মন্তব্য করলেও তাকে যে এই মুহূর্তে বহিষ্কার করছে না বিজেপি , এই মন্তব্য থেকে সেটা সম্পূর্ন পরিষ্কার ভাবে প্রমাণিত হল।

Related Articles

Back to top button