নিউজপলিটিক্সরাজ্য

“দিলীপের কথায় যথেষ্ট ক্ষুদ্ধ খড়গপুরের বিজেপি কাউন্সিলারের স্বামী। ক্ষমা না চাইলে দল ছাড়ার আভাস দিলেন তিনি

নিজস্ব প্রতিবেদন: খড়্গপুরে অসুস্থ বিজেপি কর্মীকে দেখতে গিয়ে ব্যাপক বিক্ষোভের মুখে পড়েছিলেন দিলীপ ঘোষ। এরপরেই তিনি মেজাজ হারিয়ে একটি বিতর্কিত মন্তব্য করে বসেছেন ।জানা গিয়েছে ওই এলাকায় মানুষজন বহুদিন ধরে বৃষ্টির জমা জল যন্ত্রনায় ভুগছেন । গতকাল রবিবার যখন ওই এলাকায় পৌঁছান দিলীপ ঘোষ তখন স্থানীয় বিজেপি কাউন্সিলরের নামে দিলীপ ঘোষের কাছে রীতিমতো অভিযোগ জানাতে থাকেন এলাকাবাসী।

তখন‌ই কার্যত মেজাজ হারান দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেছেন,”এতদিন সবাই কি ঘুমাচ্ছিলেন ? সাংসদ কোটার টাকা আমি আগেই পৌরসভার হাতে তুলে দিয়েছি। আমার দেওয়া টাকায় এখনো পর্যন্ত কোন কাজ শুরু করেনি পৌরসভা।

আরও পড়ুন-“মহিলা মুখ্যমন্ত্রী শাসনকালের ধর্ষণ একটি রাজনৈতিক হাতিয়ার রূপে গণ্য হচ্ছে”- বাগনান গণধর্ষণকাণ্ডে তোপ দাগলেন শুভেন্দু

আপনারা সকলে পৌরসভার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখান। দিলীপ ঘোষ কি সবকিছু করে দিতে পারবে? আপনারা রাস্তায় বিক্ষোভ দেখান আমি আপনাদের সাথে আছি। এদিকে দিলীপ ঘোষ টাকাও দেবে আবার তাকে অভিযোগও শুনতে হবে?”এর পরেই বিজেপি কাউন্সিলরদের উদ্দেশ্যে এলাকাবাসীকে দিলীপ ঘোষ বলেন,”ওর বাড়ির সামনে মলত্যাগ করে দিয়ে আসুন।

যাতে ও বাড়ি থেকে বের হতে না পারে। ল্যাম্পপোস্টে বেঁধে রাখুন।”এদিকে তাঁর এই মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে যথেষ্ট ক্ষুদ্ধ হয়েছেন ওই মহিলা কাউন্সিলের স্বামী সুখবীর সিং অট‌ওয়াল। তিনি ওই ওয়ার্ডের‌ই প্রাক্তন কাউন্সিলর। তিনি বর্তমানে বিজেপির জেলা সহ সভাপতি।

আরও পড়ুন-‘খেলা হবে’ দিবসের তারিখে আপত্তি জানিয়ে শুভেন্দুর সাথে গিয়ে রাজ্যপালের সাথে দেখা করলেন সনাতন নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা

তিনি রুষ্ট স্বরে বলেছেন,”দিলীপবাবু আমাকে অথবা আমার স্ত্রীকে একবার জিজ্ঞাসা করতে পারতেন। তিনি শুধুমাত্র বিরোধীদের মুখের কথা শুনে আমার স্ত্রীকে ল্যাম্পপোস্টে বেঁধে রাখার নিদান দিয়েছেন । আমরা বিজেপি, আমরা মহিলাদের সম্মান দিই। আমি চাই আমার স্ত্রীর কাছে দিলীপ বাবু নিঃশর্তভাবে ক্ষমা চান , যদি তিনি ক্ষমা না চান তাহলে আমাদের অন্য চিন্তা ভাবনা করতে হবে।

একজন রাজ্য সভাপতি হয়ে এক মহিলার বিরুদ্ধে এই নোংরা মন্তব্য উনার কখনোই করা উচিৎ হয়নি।”অর্থাৎ কার্যত দলত্যাগ করার পরোক্ষ হুমকি দিলেন ওই বিজেপি কাউন্সিলরের স্বামী।

Related Articles

Back to top button