খুশির খবর, অবশেষে 103 দিন পর খুললো মায়াপুরের ইস্কন মন্দির!

জুন মাসের প্রথম দিকে শুরু হয় আনলক পর্ব। গত ১ লা জুলাই থেকে শুরু হয়েছে আনলক-২। কিন্তু সেইসাথে ৩১ শে জুলাই পর্যন্ত লকডাউন‌ও চলছে। করোনার প্রকোপ এখনও যথেষ্ট সন্ত্রাস চালাচ্ছে বাংলা তথা ভারতের বুকে। তবে ভারতীয় কোম্পানি আশা জাগিয়েছে যে আগামী ১৫ ই আগষ্টের মধ্যেই করোনার ভ্যাকসিন হাতে আসতে পারে।

রাজ্য তথা কেন্দ্রের পক্ষ থেকে প্রথম থেকেই নাগরিকদের নির্দিষ্ট দূরত্ববিধি মেনে চলতে বলা হয়েছে। মেনে চলতে বলা হয়েছে সমস্ত রকম সুরক্ষা বিধিও। কিন্তু কিছুতেই নিয়ন্ত্রণে আসছে না এই করোনার প্রকোপ। ইতিমধ্যেই অনেক মানুষের প্রাণ কেড়েছে এই প্রাণঘাতী রোগ। অনেকেই সুস্থ্য‌ও হয়েছেন। তবে এখনো অনেকেই নির্দিষ্ট দূরত্ববিধি মেনে চলছে না।

আরও পড়ুন – আম্ফানে ক্ষতিগ্রস্ত স্বজনপোষণের টাকার সমস্তটাই ফেরত দিলো শাসকদল, স্পষ্ট হলো দুর্নীতি!

অনেকেই মাস্ক পরা, স্যানিটাইজার ব্যবহার করা এগুলিকে বুড়ো আঙুল দেখাচ্ছেন। যার ফলে তড়িৎ গতিতে ছড়াচ্ছে করোনা। এই আবহের মধ্যেই এবার পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার চেষ্টায় উঠেপড়ে লেগেছে রাজ্য। আস্তে আস্তে খোলা হচ্ছে ধর্মস্থান গুলো। কিন্তু মানুষকে নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে সমস্ত নিয়মনীতি এবং বিধিনিষেধ মেনে চলার জন্য।

আরও পড়ুন – ধ’র্ষ’ককে জেল থেকে বাঁচাতে 33 লক্ষ টাকার ঘু’ষ, গ্রে’ফতারির মুখে মহিলা পুলিশ অফিসার শ্বেতা জাদেজা!

আনলক-১ এ আগেই দক্ষিণেশ্বর মন্দির খুলে দেওয়া হয়েছে। তারকেশ্বর মন্দির‌ও খোলা হয়েছিলো কিন্তু তা আবার বন্ধ করে দেওয়া হয়। এরপরে খুলে দেওয়া হয়েছিলো কালীঘাটের মায়ের মন্দির। এবার জানা গিয়েছে যে লকডাউন আবহে টানা ১০৩ দিন বন্ধ থাকার পর গুরুপূর্ণিমার দিনে নদীয়ার মায়াপুরের বিখ্যাত ইসকনের মন্দির পুরোপুরি খোলা হয়েছে।

আরও পড়ুন – চীনা প্রতিষ্ঠান স্পন্সর, পুরস্কার গ্রহণ করলেন না টলিউড অভিনেতা জিৎ

তবে এর আগেও ৮ ই জুন মন্দির খুলে দেওয়া হয়েছিলো। কিন্তু তখন শুধু পূজা দেখতে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছিলো। কিন্তু এটাও মায়াপুরের মধ্যে থাকা দেশ-বিদেশের ভক্তদের জন্য এই নিয়ম বলবৎ হয়েছিলো। কিন্তু এবারে বলা হয়েছে যে ভক্তরা যে কেউ এবার মন্দিরে পূজো দিতে পারবেন এবং ঢুকতেও পারবেন।

ইসকন কতৃপক্ষের তরফ থেকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে যে, ভক্তদের মন্দিরে প্রবেশ করতে গেলে সকলকেই ৬ ফুট দূরত্ব বজায় রাখতে হবে এবং মাস্ক অবশ্যই পরিধান করতে হবে। দর্শনার্থীদের থার্মাল স্ক্রিনিং এর মধ্যে দিয়ে যেতে হবে। স্যানিটাইজারের‌ও ব্যবহার করতে হবে ভক্তদের।

মন্দির কতৃপক্ষের তরফে জানা গিয়েছে যে, সকাল ৯ টা থেকে ১২ টা পর্যন্ত এবং বিকেল ৪ টে থেকে ৬ টা পর্যন্ত মূল মন্দিরে ঢোকা যাবে। মন্দির চত্বরে ভক্তদের ধ্যান করা, বসে থাকা বা শুয়ে প্রণাম করায় আপাতত নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে মন্দির কতৃপক্ষ।

এখানে আপনার মতামত জানান