কাঁচা বাজারের অগ্নিমূল্য নিয়ন্ত্রণে অভিযানে নামলো এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চ।

কাঁচা বাজারের অগ্নিমূল্য নিয়ন্ত্রণে অভিযানে নামলো এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চ।

নিজস্ব প্রতিবেদন: গত সপ্তাহে বুধবার রাজ্যের উপকূলে আছড়ে পড়েছে ঘূর্ণিঝড় ইয়াস। বিশেষ করে দীঘা এবং সুন্দরবন উপকূলে ব্যাপক তান্ডব চালিয়েছে এই ঘূর্ণিঝড় ইয়াস। ইতিমধ্যেই করোনার আবহে রাজ্যে জারি রয়েছে বেশ কিছু বিধিনিষেধ। যার ফলে আগুন লেগেছে কাঁচা সবজির বাজারে। রীতিমতো অগ্নিমূল্য কাঁচা সবজির খুচরো এবং পাইকারি বাজার। মাথায় হাত পড়েছে মধ্যবিত্ত এবং নিম্নবিত্তের। শিয়ালদহ, কলকাতার বিভিন্ন বাজারে দেখা গিয়েছে এক‌ই প্রতিচ্ছবি। পটলের দাম কেজিপ্রতি বেড়েছে ১০ টাকা।

পিঁয়াজের দাম ২০ টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ৩০ টাকা। এছাড়াও রীতিমতো অগ্নিমূল্য আলু, বেগুন সহ আরো কাঁচা সবজির বাজার। ঝড়ের প্রভাবে বহু ফসল নষ্ট হয়ে গিয়েছে, এছাড়াও করোনার প্রভাবে লোকাল ট্রেনে সবজি ব্যবসায়ীরা সবজি নিয়ে গ্রাম থেকে আসতে পারছেন না শহরে, যার জন্য রীতিমতো চড় চড় করে বেড়েছে কাঁচা সবজির মূল্য। তাই এবার এই কাঁচা সবজির দাম নিয়ন্ত্রণে নামলো এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চ।

আরও পড়ুন-পশ্চিমবঙ্গের প্রতিটি বাড়িতে বিশুদ্ধ পানীয় জল পৌঁছে দিতে ৭ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করল কেন্দ্রীয় সরকার।

গতকাল কলকাতার মানিকতলা বাজারে এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চের একটি দল পর্যবেক্ষণ করতে গিয়েছিল। এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চ জানিয়েছে করোনার এই ভয়াবহ আবহে দক্ষিণের অঞ্চল গুলি থেকে পেঁয়াজের যোগান কম হওয়ার দরুন যথেষ্ট পরিমাণে বৃদ্ধি পেয়েছে পেঁয়াজের দাম। গতকাল বুধবার কলকাতার বিভিন্ন বাজার পরিদর্শন করেছে এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চের প্রতিনিধিরা। সবজি ব্যবসায়ী এবং বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলেছেন তারা। আধিকারিকরা বলেছেন যে পাইকারি বাজার এবং খুচরো বাজারের মূল্যের মধ্যে সামঞ্জস্য আনার চেষ্টা করছেন তারা। এই দুইয়ের মধ্যে সামঞ্জস্য আনা সম্ভব হলেই খুচরো বাজারে দাম কমবে কাঁচা সবজির।