নিউজদেশপলিটিক্স

কৃষি আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখালো কংগ্রেস। কিন্তু বিক্ষোভে গরহাজির তৃণমূল। আদৌ কংগ্রেসের জোটে তৃণমূল থাকবে কি? উঠছে প্রশ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদন: কেন্দ্রীয় সরকারের তিনটি কৃষি আইনের বিরোধিতা করে গত ৮ মাস ধরে দিল্লি সীমান্তে প্রবল বিক্ষোভ দেখিয়ে চলেছেন কৃষকরা।ক্রমাগত কৃষি আইন প্রত্যাহার, পেগাসাস ইস্যু, পেট্রোল ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধি সহ বিভিন্ন ইস্যুতে কেন্দ্রীয় সরকারের উপরে আক্রমণের রেশ আর‌ও বাড়িয়ে চলেছে তৃণমূল। কৃষক আন্দোলনকে প্রথম থেকেই সমর্থন করছেন তৃণমূল নেতারা। এমনিতেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাথে বেশ কয়েকবার সাক্ষাৎ করেছেন কৃষক আন্দোলনের নেতা রাকেশ টীকায়েত।

মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন যে তিনি সর্বদা কৃষক আন্দোলনকে সমর্থন করবেন।এদিকে আজ কৃষক আন্দোলনকে সমর্থন করতে তৃণমূল সাংসদ দোলা সেন, প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়, অপরূপা পোদ্দার সহ তৃণমূলের নেতারা যন্তর মন্তরে বিক্ষোভরত কৃষকদের সাথে সকালে উপস্থিত ছিলেন।এই বিক্ষোভ প্রসঙ্গে দোলা সেন বলেছেন, “আগামী সেপ্টেম্বরে সম্ভবত মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী আবার দিল্লি আসবেন। কৃষক আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে দিল্লির কনস্টিটিউশন ক্লাবে বিরোধীদের সাথে বৈঠকে হাজির হতে পারেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়।

আরও পড়ুন-নতুন জোটের সম্ভাবনা ত্রিপুরার মাটিতে। পৌঁছালো এআইসিসি’র প্রতিনিধি দল।

এছাড়াও তিনি গাজিপুর সহ অন্যান্য সীমানাতেও বিদ্রোহরত কৃষকদের সাথে সাক্ষাৎ করতে যেতে পারেন। মুখ্যমন্ত্রী কৃষক নেতাদের জন্য উত্তরীয় পাঠিয়ে দিয়েছেন।”এছাড়াও আজ কংগ্রেস সহ ১৪ টি বিরোধী‌দলের নেতারা দুপুরে উপস্থিত ছিলেন কৃষকদের সাথে। কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী এই বিক্ষোভে উপস্থিত হয়ে প্ল্যাকার্ড নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে স্লোগান দিয়েছেন।

আরও পড়ুন-“রাজ্য জমি দিতে পারেনি, আর কেন্দ্রকে দোষ দিচ্ছে।”- মুখ্যমন্ত্রীকে আক্রমণ করলেন দিলীপ ঘোষ।

এছাড়াও বহরমপুরের কংগ্রেস সাংসদ অধীর চৌধুরী এবং কংগ্রেস সাংসদ মল্লিকার্জুন খাড়গে এই বিক্ষোভ কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন। কিন্তু দুপুরে কংগ্রেসের এই বিক্ষোভ কর্মসূচিতে আম আদমি পার্টি তৃণমূল কংগ্রেস এবং বহু জন সমাজ পার্টির নেতা নেত্রীরা উপস্থিত ছিলেন না। যার ফলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা অনুমান করছেন যে ঐক্যবদ্ধ বিরোধী জোট গঠন করার আগেই সংগঠনগুলির একতায় কিছুটা হলেও ফাটল দেখা দিয়েছে। এর আগেও রাহুল গান্ধীর আহ্বান করা কোন বৈঠকে তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা-নেত্রীরা উপস্থিত হননি।

এরপর আজ কৃষক আন্দোলনেও দেখা মিলল না তৃণমূল নেতাদের , যার ফলে ভবিষ্যতের জোট গঠন নিয়ে যথেষ্ট সংশয় সৃষ্টি হয়েছে রাজনৈতিক আঙিনায়।

Related Articles

Back to top button