ভয়াবহ বিস্ফোরণে কেঁপে উঠলো টিটাগড়ের ক্লাব। মৃত ১ জন। আহত ১।

ভয়াবহ বিস্ফোরণে কেঁপে উঠলো টিটাগড়ের ক্লাব। মৃত ১ জন। আহত ১।

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটে ধুন্ধুমার পরিস্থিতির মুখ দেখেছে রাজ্য। প্রথম দফার ভোট শান্তিপূর্ণভাবে মিটলেও দ্বিতীয় দফার ভোট থেকেই রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে যথেষ্ট হিংসা-হানাহানির ঘটনা ঘটেছে। বিভিন্ন জায়গায় রক্তপাত এবং প্রাণহানি ঘটেছে। মানুষজন গণতন্ত্রের এই উৎসবে উৎফুল্ল ভাবে অংশগ্রহণ করার থেকে শঙ্কিত হয়ে ভোট দিতে যাচ্ছেন। অনেক জায়গাতেই ভোটারদের মারধর এবং ভোটারদের প্রভাবিত করার অভিযোগ উঠেছে রাজনৈতিক দলের কর্মীদের বিরুদ্ধে।

বেশকিছু বুথে গন্ডগোলের খণ্ডচিত্র ধরা পড়েছে। ‌ যেমন কল্যাণীতে ভোটাররা রাস্তায় বসে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন যে তাদের নাকি তৃণমূলের লোকজন ভোট দিতে দেয়নি। এছাড়া এক বিজেপি বুথ সভাপতির বাড়িতে বোমা ছোঁড়া হয়েছে। এছাড়াও আজ রাজ্যের বিভিন্ন জায়গা থেকে বিক্ষিপ্ত ছোটখাটো অশান্তির খবর পাওয়া গিয়েছে। কোচবিহারের শীতলকুচিতে কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে মারা গিয়েছে চার তৃণমূল সমর্থক।

আরও পড়ুন-প্রয়াত কবি শঙ্খ ঘোষ। বাংলা সাহিত্য জগতে শোকের ছায়া

এবার আরেকটি ভয়াবহ ঘটনা ঘটেছে টিটাগড়ের জি সি রোড খাটাল এলাকায়। ওই এলাকার একটি ক্লাবঘরে ভয়াবহ বিস্ফোরণ ঘটেছে। ‌ গতকাল রাতে এই ভয়াবহ ঘটনাটি ঘটেছে। হঠাৎ করেই গভীর রাতে ওই ক্লাবঘরে জোরালো বিস্ফোরণ হয়। বিস্ফোরণের ব্যাপকতায় উড়ে যায় ক্লাব ঘরের চাল। ‌ সাথে সাথে এলাকার মানুষ ছুটে এসে ওই ক্লাব ঘরের ভিতর থেকে রক্তাক্ত অবস্থায় দুজনকে উদ্ধার করেন। ‌ তারমধ্যে ঘটনাস্থলেই মারা যান একজন। ‌

আহত হয়ে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন আরেক ব্যক্তি। ‌ ওই ঘটনাস্থলে দেখা গিয়েছে সমগ্র ঘরটি বিস্ফোরণের আঘাতে ছিন্নভিন্ন হয়ে গিয়েছে। রহড়া থানার অন্তর্গত ওই এলাকায় ক্লাবটিতে ভোটের আগে গন্ডগোল পাকানোর জন্য বোমা তৈরি করা হচ্ছিলো বলে জানিয়েছে পুলিশ। ঘটনাস্থল থেকে অনেকগুলি কৌটো পাওয়া গিয়েছে। ‌ এই কৌটোগুলিতেই বিস্ফোরক ভরে মজুত করা হচ্ছিল বলে তদন্তকারী পুলিশ অফিসাররা জানিয়েছেন।ওই এলাকাটি খড়দা বিধানসভা এলাকার মধ্যে পড়ে। ‌ এই এলাকায় আগামীকাল হতে চলেছে ষষ্ঠ দফার ভোট। তার মাঝেই এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে এলাকায়।