শীতলকুচি তে নিহতদের পরিবারের সাথে ভিডিও কলে কথা বললেন মুখ্যমন্ত্রী। দিলেন পাশে থাকার আশ্বাস।

শীতলকুচি তে নিহতদের পরিবারের সাথে ভিডিও কলে কথা বললেন মুখ্যমন্ত্রী। দিলেন পাশে থাকার আশ্বাস।

নিজস্ব প্রতিবেদন: কোচবিহারের শীতলকুচি ঘটনা বর্তমানে অন্যতম চর্চার কেন্দ্র রাজ্যের রাজনীতিতে। কেন্দ্রীয় বাহিনীর জ‌ওয়ানদের গুলিতে প্রাণ গিয়েছে ৪ জন তৃণমূল সমর্থকদের। কেন্দ্রীয় বাহিনী দাবি করেছে , ওই তৃণমূল সমর্থক রা এবং আরও বেশ কয়েকজন তাদের ঘিরে ধরে আক্রমণ করতে উদ্যত হয়েছিল, তাই তারা প্রাণ রক্ষার্থে গুলি চালিয়েছে। এই ঘটনায় রাজ্য জুড়ে প্রবল আলোড়ন পড়ে গিয়েছে।

তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করে বলেছেন , “বিজেপি বাংলায় হিংসার রাজনীতি করছে, কেন্দ্রীয় জওয়ানরা বিজেপির কথামতো গুলি চালিয়েছে। এতবড়ো হত্যা বাংলার ভোটে কখনো হয়নি।”আবার ওই বুথেই তৃণমূল আশ্রিত গুন্ডাদের গুলিতে প্রাণ গিয়েছে আনন্দ বর্মন নামক ১৮ বছরের এক তরুণের। নিহত তৃণমূল সমর্থক দের পরিবারের সাথে দেখা করতে চেয়ে ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আরও পড়ুন-ময়ূরেশ্বরে বিজেপি বুথ সভাপতির বাড়ির পাশে উদ্ধার ড্রাম ভর্তি তাজা বোমা। প্রবল চাঞ্চল্য এলাকায়।

কিন্তু নির্বাচন কমিশন করা ভাবে জানিয়ে দিয়েছে কোচবিহারের মাটিতে তাকে এখন ঢুকতে দেওয়া যাবে না। এরপরেই ভিডিও কলে নিহত তৃণমূল সমর্থক দের পরিবারের সাথে কথা বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।গণতন্ত্রের অন্যতম মৌলিক অধিকার ভোটাধিকার, আরে ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে গিয়ে এই হিংসার বলি হয়েছেন ৫ জন। অকালে ঝরেছে তাদের প্রাণ।এই ঘটনায় তীব্র বাদানুবাদ এর সৃষ্টি হয়েছে বিজেপি এবং তৃণমূলের বিরুদ্ধে। ‌

বাম সংযুক্ত মোর্চাও এই ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ করেছে। ‌ অমিত শাহ সরাসরি এই ঘটনায় অভিযোগের আঙুল তুলেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দিকে। এই ঘটনায় তীব্রতর হয়েছে তৃণমূল বিজেপির দ্বৈরথ।ভিডিও কলে নিহতদের পরিবারের সাথে কথা বলে মুখ্যমন্ত্রী তাদের আশ্বাস দিয়েছেন যে তিনি সর্বসম্মতভাবে তাদের পাশে থাকবেন।

এই ঘটনায় নির্বাচন কমিশন করা নির্দেশিকা দিয়েছে যে আগামী ৭২ ঘন্টা কোচবিহারের শীতলকুচি তে কোনরকম জাতীয় দলের নেতা-নেত্রীকে ঢুকতে দেওয়া হবে না। ‌ভিডিও কলে মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, “সেন্ট্রাল পুলিশ আপনাদের ছেলেকে গুলি করে মেরেছে, এখন আমাকে ওখানে যেতে দেওয়া হচ্ছে না, তবে আমি খুব শীঘ্রই যাবো আপনাদের কাছে, আমরা এর বিচার চাইবো, আমি আপনাদের পাশে রয়েছি।”