নিউজপলিটিক্সরাজ্য

ম্যান মেড বন্যা বলেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। উত্তর দিলো ডিভিসি।

নিজস্ব প্রতিবেদন: বেহাল‌ পরিস্থিতিতে পড়েছে হাওড়ার আমতা, উদয়নারায়ণপুর, হুগলির গোঘাট, খানাকুল প্রভৃতি এলাকা। আজ হেলিকপ্টারে বন্যা বিধ্বস্ত এলাকা পরিদর্শন করার কর্মসূচি নিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ‌ কিন্তু খারাপ আবহাওয়ার কারণে আজকে হেলিকপ্টারে তার এই কর্মসূচি বাতিল করতে হয়। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী বন্যা দুর্গত মানুষের কাছে পৌঁছানোর জন্য সড়ক পথেই চলে গিয়েছেন বন্যা দুর্গত এলাকা গুলিতে।

প্রথমে সড়কপথে গিয়েছিলেন তিনি হাওড়ার আমতায়।মুখ্যমন্ত্রী উদয়নারায়নপুরের মাটি থেকে অভিযোগ করেছেন যে, “এই বন্যা সম্পূর্ণ ম্যান মেড বন্যা । আমি বারবার ডিভিসিকে অনুরোধ করেছিলাম যে রাজ্যকে না জানিয়ে যেন জল না ছাড়া হয়। কিন্তু ডিভিসি আমার কথা শোনেনি।

আরও পড়ুন-আর্থিক মন্দার কারণে হেস্টিংসের অফিস ছোট করার সিদ্ধান্ত নিল রাজ্য বিজেপি।

আমাদের না জানিয়ে জল ছাড়ার ফলেই এই বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।”এদিকে মুখ্যমন্ত্রীর এই মন্তব্যের উত্তর দিয়েছে ডিভিসি। ডিভিসি জানিয়েছে যে, শুধুমাত্র জল ছাড়ার কারণে এই বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়নি। টানা বৃষ্টির ফলে দক্ষিণবঙ্গের নদীগুলিতে ব্যাপক জলের পরিমাণ বেড়ে গিয়েছে।

আরও পড়ুন-“শিক্ষিত বেকারদের চোখের জলের টাকা ক্লাবগুলির হাতে তুলে দেবেন না”- মুখ্যমন্ত্রী কে আক্রমণ করলেন রুদ্রনীল ঘোষ

এর পাশাপাশি মাইথন, পাঞ্চেত জলাধারে ড্রেজিংয়ের দরকার বলে জানিয়েছে ডিভিসি। এছাড়াও ডিভিসি জানিয়েছে জল ছাড়তে হবে কতটা পরিমাণে সেটা ঠিক করে ডিভিসির একটি কমিটি। এই কমিটিই জল ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেয়। ডিভিসি জানিয়েছে তারা একদিনে ১ লক্ষ ৪৬ হাজার কাউসেক জল ছেড়েছে।

এখনো পর্যন্ত সাড়ে ৩ লক্ষ কিউসেক জল জলাধারে ধরে রাখা হয়েছে।

Related Articles

Back to top button