“মুখ্যমন্ত্রী জনসাধারণকে শেখাচ্ছেন কীভাবে কেন্দ্রীয় বাহিনীকে ঘেরাও করতে হবে”- শিলিগুড়িতে মমতাকে বিঁধলেন মোদী।

“মুখ্যমন্ত্রী জনসাধারণকে শেখাচ্ছেন কীভাবে কেন্দ্রীয় বাহিনীকে ঘেরাও করতে হবে”- শিলিগুড়িতে মমতাকে বিঁধলেন মোদী।

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশে নির্বাচনে রাজ্যজুড়ে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে বদ্ধপরিকর কেন্দ্রীয় বাহিনী তথা নির্বাচন কমিশন‌ও। নির্বাচন কমিশন আগেই কেন্দ্রীয় বাহিনীকে নির্দেশ দিয়েছিল যে আত্মরক্ষার্থে গুলি চালাতে পারে তারা। এরপরেই কোচবিহারের মাথা ভাঙ্গায় কেন্দ্রীয় বাহিনী গুলি চালিয়েছে উন্মত্ত জনতার উপরে।

এই ঘটনায় চার যুবকের মৃত্যু হয়েছে। তৃণমূল দাবি করেছে ওই চারজন তাদের সমর্থক, এছাড়া তৃণমূল দাবি করেছে কোনরকম প্ররোচনায় ছাড়াই হঠাৎ করে গুলি চালিয়েছে কেন্দ্রীয় বাহিনী । তবে কেন্দ্রীয় বাহিনী বলেছে ৩০০ জন থেকে ৪০০ জন বাহিনী কে ঘিরে ধরে আক্রমণ চালাতে এসেছিল, তাই আত্মরক্ষার্থে কেন্দ্রীয় বাহিনী গুলি চালিয়েছে।এই ঘটনায় অত্যন্ত চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে কোচবিহারে। ‌ নির্বাচন কমিশন এই ঘটনার পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট চেয়ে পাঠিয়েছে।

আরও পড়ুন-কসবায় ভোটারদের কার্ড কেড়ে নেওয়ার অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এই ঘটনায় মুখ্যমন্ত্রী কে কটাক্ষ করে বলেছেন, “কোচবিহারে যারা মারা গিয়েছেন তাদের মৃত্যুতে আমি খুবই শোকাহত। বিজেপির পক্ষে বিপুল জনসমর্থন দেখে দিদি এবং উনার গুন্ডারা ভয় পেয়ে সন্ত্রাস চালাতে শুরু করেছে। তবে এটা জেনে নেয়া দরকার এই গুন্ডাগিরি আমরা আর চলতে দেব না বাংলার মাটিতে।

মানুষকে কেন্দ্রীয় বাহিনীর উপরে হামলা করার উস্কানি দিচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী। এখন তিনি মানুষকে ট্রেনিং দিচ্ছেন কিভাবে কেন্দ্রীয় বাহিনীকে ঘেরাও করতে হবে আর কিভাবে বুথের পর বুথে হামলা চালাতে হবে। কিন্তু আমাদের দেশের বীর জ‌ওয়ানরা জঙ্গীদের বিরুদ্ধে লড়াই করে, নকশালদের বিরুদ্ধে লড়াই করে, তারা তৃণমূলের গুন্ডাদের ভয় পাবেনা। ‌ আপনি এই হিংসা হানাহানির দ্বারা আপনার ১০ বছরের কুকর্ম ঢাকতে চাইছেন।”