“দায়িত্বজ্ঞানহীন আচরণ করছে কেন্দ্রীয় সরকার। রাজ্য আলাপনের পাশেই রয়েছে।”- মন্তব্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের

“দায়িত্বজ্ঞানহীন আচরণ করছে কেন্দ্রীয় সরকার। রাজ্য আলাপনের পাশেই রয়েছে।”- মন্তব্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের

নিজস্ব প্রতিবেদন: সম্প্রতি আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় এর আচার এবং ব্যবহার নিয়ে প্রশ্ন চিহ্ন তুলে নিয়ে অল ইন্ডিয়া সার্ভিসের ৮ নম্বর ধারা অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে শাস্তি মূলক ব্যবস্থা গ্রহণে সচেষ্ট হয়েছে কেন্দ্রের কর্মীবর্গ দপ্তর। এই মর্মে আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় কে চিঠি দিয়ে জানানো হয়েছে যে এই চিঠি পাওয়ার আগামী ৩০ দিনের মধ্যে তাঁকে আত্মপক্ষ সমর্থন করতে হবে এবং তিনি সশরীরে হাজির আজকে এই চিঠির উত্তর দেবেন কিনা তাও জানাতে হবে। তিনি যদি এই চিঠির নির্ধারিত সময়ের মধ্যে উত্তর না দেন তাহলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কড়া ব্যবস্থা নেবে।

এর ফলে তার অবসরকালীন সুযোগ-সুবিধার উপরে কোপ পড়তে পারে বলে সতর্ক করেছে কেন্দ্রীয় কর্মীবর্গ দপ্তর। আর এই চিঠির প্রাপ্তির পরেই রাজ্য তৃণমূল নেতারা যথেষ্ট ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছেন কেন্দ্রীয় সরকারের উপরে। তৃণমূল নেতা সৌগত রায়, সুখেন্দু শেখর রায় সহ অনেকেই তীব্র বিরোধিতা করেছে কেন্দ্রীয় সরকারের এই চিঠির। তৎকালীন মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর পদ থেকে রিটায়ার করেছেন।

আরও পড়ুন-“সিঁদুর পরে ভারতীয় সংস্কৃতির অপমান করেছে নুসরত”- কটাক্ষ দিলীপ ঘোষের।

বর্তমানে তিনি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখ্য উপদেষ্টা পদে নিযুক্ত রয়েছেন।আলাপনের পাশেই রয়েছে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার। এমনটাই বার্তা দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি নবান্ন থেকে বলেছেন,”সম্পূর্ণ দায়িত্বজ্ঞানহীন আচরণ করছে কেন্দ্রীয় সরকার।

আরও পড়ুন-এবার বেসুরো হয়ে উঠলেন সিপিএম থেকে পদ্মফুলে আসা রিঙ্কু নস্কর।

রাজ্য সরকার সর্বসম্মতভাবে আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশেই রয়েছে। আগে রাজীব গান্ধীর সময়ে ৪০০ জন কেন্দ্রীয় সাংসদ ছিলেন। বর্তমান বিজেপি সরকারের কাছে ওত জন সাংসদ নেই , কিন্তু তবুও তারা গায়ের জোরে সমস্ত কাজ করতে চাইছে। দেশটা শুধুমাত্র বিজেপির একার দেশ নয়।

তাদের বুঝতে হবে গণতন্ত্রে গায়ের জোরে সব কিছু হাসিল করা যায়না। রাজ্য সবসময়ই আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাথে থাকবে।”