পশ্চিমবঙ্গের প্রতিটি বাড়িতে বিশুদ্ধ পানীয় জল পৌঁছে দিতে ৭ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করল কেন্দ্রীয় সরকার।

পশ্চিমবঙ্গের প্রতিটি বাড়িতে বিশুদ্ধ পানীয় জল পৌঁছে দিতে ৭ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করল কেন্দ্রীয় সরকার।

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটের প্রচারে বাংলায় এসে প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন বাংলার প্রতিটি বাড়িতে বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হবে বিশুদ্ধ পানীয় জল। নলবাহিত জল পৌঁছে দেওয়া হবে খুব শীঘ্রই, এমনটাই প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। গত ২০১৯ সালের ১৫ ই আগস্ট তিনি ঘোষণা করেছিলেন ‘জল জীবন’ প্রকল্পের। তিনি প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন যে ২০২৪ সালের মধ্যেই দেশের গ্রামগুলিতে প্রতিটি বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হবে বিশুদ্ধ পানীয় জল। এই প্রকল্পকে বাস্তবায়িত করার জন্য ২০১৯-২০২০ এর প্রথম পর্বেই পশ্চিমবঙ্গ কে ৯৯৫.৩৩ কোটি টাকা দিয়েছিলো মোদী সরকার।

তারপরেই দেওয়া হয়েছিল ১৬১৪.১৮ কোটি টাকা। এরপরে আবার জলজীবন প্রকল্পের জন্য কেন্দ্রীয় সরকার রাজ্যের জন্য বরাদ্দ করেছে ৭ হাজার কোটি টাকা।কেন্দ্রীয় সরকারের পরিসংখ্যান অনুযায়ী ইতিমধ্যেই সাড়ে সাত কোটি মানুষের কাছে নলবাহিত বিশুদ্ধ পানীয় জল পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের বেশীরভাগ জায়গাতেই এখনো নলবাহিত জল পৌঁছে দেওয়া সম্ভবপর হয়নি। তাই এবার বাংলায় পানীয় জল প্রকল্পে ৭ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দের অনুমোদন দিয়েছে মোদী সরকার।

আরও পড়ুন-করোনার দৈনিক সংক্রমণের মধ্যে রেকর্ড পতন। আশায় বুক বাঁধছেন তামাম ভারতীয়রা।

রাজ্যে ১ কোটি ৬৩ লক্ষ ২৫ হাজার মানুষের বাড়িতে পানীয় জল পৌঁছে দেওয়ার কথা থাকলেও অত্যন্ত ধীর গতিতে কাজ হ‌ওয়ার দরুণ এখনো পর্যন্ত মাত্র ১৪ লক্ষ মানুষের বাড়িতে পানীয় জল পৌঁছে দেওয়া সম্ভবপর হয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকার জানিয়েছিলো যে বাংলার বুকে রয়েছে ৪১,২৫৭ টি গ্রাম। রাজ্যের সাথে ইতিমধ্যেই বৈঠক করেছে কেন্দ্রীয় জলশক্তি মন্ত্রক যাতে আগামীদিনে খুব শীঘ্রই রাজ্যের গ্রামগুলির বাড়িতে বাড়িতে বিশুদ্ধ পানীয় জল পৌঁছে দেওয়া যায়। এখনো পর্যন্ত ১০ হাজার ৪৬ টি স্কুলে পানীয় জল পৌঁছে দিতে পেরেছে রাজ্য। আর্সেনিকের পরিমাণ বেশী রয়েছে যে গ্রাম গুলিতে সেই গ্রামগুলিতে আগে পৌঁছে দেওয়া হবে বিশুদ্ধ পানীয় জল।