ইয়াসের দাপটে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করতে আজ দক্ষিণ ২৪ পরগনা যাচ্ছে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল।

ইয়াসের দাপটে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করতে আজ দক্ষিণ ২৪ পরগনা যাচ্ছে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল।

নিজস্ব প্রতিবেদন: ইয়াসের তান্ডবে লন্ডভন্ড হয়েছে পূর্ব মেদিনীপুরের বিস্তীর্ণ এলাকা। দীঘা উপকূল সহ তাজপুর, রামনগর, মন্দারমণি, শঙ্করপুর প্রভৃতি জায়গা গুলি যথেষ্ট ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সুন্দরবনের বেশ কিছু অঞ্চলে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি করেছে ইয়াস। সমুদ্র উপকূলবর্তী এলাকাগুলিতে সমুদ্রের জল ঢুকে বন্যা সৃষ্টি করেছে।

কয়েক হাজার মানুষ নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে ত্রাণ শিবিরে আশ্রয় নিয়েছেন। মুখ্যমন্ত্রী বাংলার জন্য ২০ হাজার কোটি টাকা দাবী করেছেন প্রধানমন্ত্রীর কাছে। এদিকে জানা গিয়েছে যে, ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের কবলে বাংলার ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ খতিয়ে দেখতে বাংলায় আসছে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল। গত রবিবার সাত সদস্য বিশিষ্ট এই দল বাংলার মাটিতে পা রেখেছে।

আরও পড়ুন-সিবিআই অফিসারদের জন্য জারি হল নতুন নিয়ম।

ইয়াস বিধ্বস্ত এলাকাগুলিতে পর্যবেক্ষণ চালিয়ে তাঁরা বৈঠক করবেন নবান্নে।এই দলের নেতৃত্বে রয়েছেন স্বরাষ্ট্র দপ্তরের যুগ্ম সচিব এস কে শাহী। রবিবার বাংলায় অবতরণ করার পর তারা আজ সোমবার কপ্টারে করে পাথরপ্রতিমা এবং গোসাবার বিস্তীর্ণ অঞ্চল পরিদর্শন করবেন। অন্য দলটি যাবে দীঘা এবং মন্দারমনিতে।

আরও পড়ুন-“এক বছরে ভ্যাকসিন বানিয়ে আত্মনির্ভরতার পরিচয় দিয়েছে ভারত।”- বললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

সেইমতো আজ দুটি দল র‌ওনা দিয়েছে বাসন্তীর গদখালির উদ্দেশ্যে। সেখান থেকে লঞ্চে করে তাঁরা যাবেন ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধ গুলি পরিদর্শন করতে। তারপরে তাঁরা যাবেন গোসাবায়।সেখানে গিয়ে এই দুটি দল সমস্ত ক্ষয়ক্ষতি খতিয়ে দেখবেন।

আরও পড়ুন-ভারতীয় নৌসেনার হাতে আসতে চলেছে অত্যাধুনিক সাবমেরিন। আজ‌ই বৈঠকে সিদ্ধান্ত হতে চলেছে।

একটি দল আকাশপথে পর্যবেক্ষণ করবে এবং অপর দলটি জলপথে পর্যবেক্ষণ করবে। গদখালি থেকে পাথরপ্রতিমার বিস্তীর্ণ অঞ্চল গুলি তারা খতিয়ে দেখবেন। গ্রাম গুলির ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ, মানুষজনের কি কি সমস্যা হচ্ছে সমস্ত কিছু পর্যবেক্ষণ করবেন তাঁরা। তারপর তাঁরা রিপোর্ট বানিয়ে পাঠাবেন কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে।