নিউজ

আদালতে হাজিরা পরীমনির। দোষী প্রমাণিত হলে সর্বোচ্চ ৫ বছরের কারাদন্ড। জামিনের আবেদন আইনজীবীর

নিজস্ব প্রতিবেদন: গত সপ্তাহে বাংলাদেশী নায়িকা পরিমনির বাড়ি থেকে বাংলাদেশের র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন নিষিদ্ধ মাদক এবং মদ উদ্ধার করেছে। সাথে সাথেই নায়িকাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। পরিমনির বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে উদ্ধার করা হয়েছে ৩০ টি বিদেশী মদের বোতল, এলএসডি নেশার জন্য ব্যবহৃত ব্লটিং কাগজ, এবং কিছু নিষিদ্ধ মাদকদ্রব্য।

এদিকে বাংলাদেশী লেখিকা তসলিমা নাসরিন ফেসবুকে পরিমনির পক্ষ নিয়ে বাংলাদেশ সরকারের বিরুদ্ধাচরণ করে যথেষ্ট আক্রমণ শানিয়েছেন। জানা গিয়েছে বাংলাদেশের গুলশান বিভাগের এডিসি মহম্মদ গোলাম সাকলায়েন শিথিলের সাথে সম্পর্ক রয়েছে পরিমনির এমনটাই গুঞ্জন উঠেছে। এদিকে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ সাকলায়েনকে তাঁর দ্বায়িত্ব থেকে হটিয়ে দিয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

আরও পড়ুন –লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্পে গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

গত বুধবার ৪ দিনের রিমান্ড শেষে ঢাকার হাকিম আদালত থেকে সিআইডি কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে পরীমনিকে। সেখানেই তিনি হঠাৎ চিৎকার করে সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে কাঁদতে কাঁদতে বলেন, “আমাকে সম্পূর্ন ফাঁসানো হচ্ছে, আমাকে কোন কথা বলতে দেওয়া হচ্ছে না। সাংবাদিকরা আপনারা কি করছেন? আপনারা সত্য খবর প্রকাশিত করুন।”

আজ আবার আদালতে পেশ‌ করা হয়েছে অভিনেত্রী পরীমনিকে। তাঁর বিরুদ্ধে সমস্ত অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাঁর সর্বোচ্চ ৫ বছরের হাজতবাস হতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন পরীমনির ভক্তরা। এর আগে তাঁকে বুধবার থেকে দু’দিন পুলিশী হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছিলো বাংলাদেশের আদালত। ইতিমধ্যেই পরীমনির আইনজীবীরা তাঁর জামিনের জন্য আবেদন জানিয়েছেন। ইতিমধ্যেই বাংশাদেশের অনেক বিশিষ্টজনেরাই পরীমনির পাশে দাঁড়িয়েছেন। বাংলাদেশ সিনেমা জগতের অনেক শিল্পীরাও পরীমনির স্বপক্ষে স‌ওয়াল করেছেন।

Related Articles

Back to top button