নিউজপলিটিক্সরাজ্য

“শীতলকুচিতে গুলির পর ফাঁকা হয়ে গিয়েছিল বুথ, ভুলে গিয়েছিলেন জানাতে।”- স্বীকারোক্তি দিলেন প্রাক্তন এসপি

নিজস্ব প্রতিবেদন: শীতলকুচি কান্ডে উত্তপ্ত হয়েছিলো সারা বাংলা। কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানদের ঘেরাও করে আক্রমণ করার অভিযোগে কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানরা গুলি চালিয়েছিলো যার দরুন প্রাণ গিয়েছে ৪ তৃণমূল সমর্থকের। শীতলকুচির জোড়পাটকি গ্রামের ১২৬ নম্বর বুথে এই ঘটনার পরেই সারা রাজ্য জুড়ে কালা দিবস পালন করেছে তৃণমূল। ‌ঘটনার পরেই মুখ্যমন্ত্রীকে নির্বাচন কমিশন অনুমতি দেয়নি কোচবিহারে নিহতদের বাড়িতে যাওয়ার জন্য।

ভিডিও কলে নিহত তৃণমূল সমর্থক দের পরিবারের সাথে কথা বলেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। ওদিকে ওই বুথেই গুলি করে হত্যা করা হয়েছিলো আনন্দ বর্মনকে। এই হত্যার অভিযোগ উঠেছিলো তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে। এই ঘটনাকে ঘিরে ক্রমেই পারদ চড়েছে বঙ্গ রাজনীতিতে।

আরও পড়ুন-“পাঞ্জাব ভেঙেও তো হরিয়ানা হয়েছে”- এবার বঙ্গভঙ্গ বিষয়ে মুখ খুললেন তথাগত রায়

বর্তমানে এই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে সিআইডি। কোচবিহারের এই ঘটনার সময় তৎকালীন প্রাক্তন পুলিশ সুপার দেবাশীষ ধরকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে সিআইডি। গতকাল তাকে তদন্তকারীরা আবার জেরা করেন। ‌ জেরাতে কিছুটা বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন প্রাক্তন পুলিশ সুপার।

তিনি বলেছেন যে, কোচবিহারে ওই বুথে গুলি চালানোর বুথ ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন সিআইএসএফ জওয়ানরা। কিন্তু তিনি এই বিষয়টি নির্বাচন কমিশনকে জানাতে ভুলে গিয়েছিলেন। একজন উচ্চ পদস্থ অফিসার কিভাবে এই ঘটনার কথা জানাতে ভুলে যান এর উত্তরে দেবাশীষ ধর বলেছেন যে, উনার ভুল হয়ে গিয়েছে উনি রাতে মৌখিকভাবে ডিজি এবং এডিজি আইন-শৃঙ্খলা কে সেই বিষয়ে জানিয়েছিলেন । দেবাশীষ ধর বলেছেন, ‘ওইদিন বুথে দুটি গুলি চালানোর ঘটনা ঘটেছিল যাতে সিআইএসএফ‌’ই জড়িত রয়েছে , তাই একটাই এফআইআর করা হয়েছিলো।’

আরও পড়ুন-“রেশন কার্ডের সাথে আধার লিঙ্ক হলে তবেই পাবেন দুয়ারে রেশন।”- ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর।

এছাড়াও দেবাশীষ ধর বলেছেন যে তিনি ওই ঘটনার পর সকালে গিয়ে তদন্ত করেননি তিনি গিয়েছিলেন ১২ ই এপ্রিল। একটা এত বড় কাণ্ডের তদন্তে তিনি সকালে গেলেন না কেন সেই বিষয়ের কোনো স্পষ্ট উত্তর দিতে পারেননি তিনি। গতকাল সিআইডির তদন্তকারী অফিসাররা তাকে প্রায় ৫০ টি প্রশ্ন করেছেন।

Related Articles

Back to top button