নিউজদেশবিনোদন

‘নিজেদের মসিহা ভাবছেন।”- সোনু সুদ এবং জীসানের বিরুদ্ধে তদন্তের নির্দেশ দিলো বোম্বে হাইকোর্ট।

নিজস্ব প্রতিবেদন: তিনি করোনার প্রথম আবহ থেকেই অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। সারা দেশবাসী বর্তমানে তাঁকে ভগবানের জায়গায় আসীন করেছেন। তিনি হলেন অভিনেতা সোনু সুদ। সোশ্যাল মিডিয়ায় যোগাযোগ করলেই করোনার ওষুধ পাঠিয়ে দিচ্ছেন অভিনেতা সোনু এবং মহারাষ্ট্রের বিধায়ক জীসান সিদ্দীকী।

এই পরিস্থিতিতে তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করার জন্য মহারাষ্ট্র সরকারকে নির্দেশ দিয়েছে বোম্বে হাইকোর্ট।মহারাষ্ট্রের বেশ কয়েক দিন আগে করোনা মোকাবিলায় গাফিলতি অভিযোগে একটি জনস্বার্থ মামলা দায়ের করা হয়েছে। এই জনস্বার্থ মামলার শুনানিতে বোম্বে হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ নির্দেশ দিয়েছে, “যে সমস্ত রাজনৈতিক নেতা এবং সেলিব্রিটিরা নিজেদের মসিহা রূপে দেখিয়ে ওষুধ বন্টন করে চলেছেন সেই ওষুধ বেআইনিভাবে বন্টন হচ্ছে অথবা সেই ওষুধে কোনো গলদ রয়েছে কিনা তা কোনভাবেই পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে না।”সাধারনত অসহায় মানুষদের রেমডিসিভির দিয়ে সহায়তা করছেন অভিনেতা সোনু।

আরও পড়ুন-“আমার অভিনয় জীবন শুরু হয়েছে উনার সাথে।”- স্বাতীলেখা দেবীর স্মৃতিচারণায় বললেন নাট্যব্যক্তিত্ব দেবশঙ্কর হালদার

এই প্রসঙ্গে বোম্বে হাইকোর্টে মহারাষ্ট্র সরকার উল্লেখ করেছে যে, ‘তদন্ত করে দেখা গিয়েছে যে একটি বেসরকারি হাসপাতালে দোকান থেকে ওই ওষুধগুলো কেনা হচ্ছে। কিন্তু এই ওষুধগুলো বর্তমানে সরকারি বরাদ্দের বাইরে রয়েছে।’বোম্বে হাইকোর্টে অ্যাডভোকেট জেনারেল আশুতোষ বলেছেন, “জীসান সিদ্দিকী বিডিআর ফাউন্ডেশন নামক এক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার মাধ্যমে সহায়তা করছেন। কিন্তু ওই স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সরকারি খাতায় কোন নথিভুক্তকরণ নেই, করোনার ওষুধের বন্টনে তাদের কাছে ছাড়পত্র নেই।

আরও পড়ুন-‘পদ্মাবত’, ‘রামলীলা’, ‘হাফ গার্লফ্রেন্ড’ এর মতো ছবিগুলি থেকে বাদ দেওয়া হয়েছিলো সুশান্ত কে।

ওই সংস্থার বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা দায়ের করেছে মহারাষ্ট্র সরকার। কিন্তু যেহেতু জীসান কোনো কাগজপত্রের মাধ্যমে ওই ওষুধ না কিনে লোক পাঠিয়ে কিনছেন তাই জীসানের বিরুদ্ধে তদন্ত সম্ভবপর হচ্ছে না।”বোম্বে হাইকোর্ট মহারাষ্ট্র সরকারকে অবিলম্বে নির্দেশ দিয়েছে যে এই ওষুধ বণ্টনের বিষয়ে অবিলম্বে সোনু এবং জীসানের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করুক মহারাষ্ট্র সরকার।

Related Articles

Back to top button