কলকাতার ধাপায় একসাথে ২০ জন আক্রান্তের দেহ এলো

কলকাতার ধাপায় একসাথে ২০ জন আক্রান্তের দেহ এলো

নিজস্ব প্রতিবেদন: সারা দেশ জুড়ে প্রবল শক্তি সঞ্চয় করে আছড়ে পড়েছে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ। লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। সারাদেশব্যাপী এক ভয়াবহ মৃত্যুর আতঙ্কের সূচনা হয়েছে। সারা দেশের মধ্যে এই মহামারীতে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে অগুনতি মানুষের। মহারাষ্ট্রের অবস্থা সবথেকে শোচনীয়। মহারাষ্ট্র এবং দিল্লিতে জারি হয়েছে সাময়িক লকডাউন। দিল্লির অবস্থা যথেষ্ট শোচনীয়।

পশ্চিমবঙ্গের বুকে মৃত্যু মিছিল জারি রয়েছে এই ভাইরাসের প্রভাবে। ‌ এখনো পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৭ লক্ষ ৯০৪ জন। মৃত্যু ঘটেছে ১০ হাজার ৭৬৬ জনের। সুস্থ্য হয়েছেন ৬ লক্ষ ২১ হাজার ৩৪০ জন।কলকাতার বুকে ভয়াবহ আতঙ্কের সূচনা করেছে করোনা। কলকাতা এবং তার পার্শ্ববর্তী এলাকাগুলিতে নির্দিষ্ট জায়গায় করোনা আক্রান্তদের মৃতদেহ পোড়ানো হচ্ছে। ধাপায় পরপর পোড়ানো হচ্ছে আক্রান্তদের দেহ।

আরও পড়ুন-করোনার এই ভয়াবহ আবহে সব বিধি ভুলে ভীড় উপচে পড়ছে মমতা-অমিতের জনসভায়

অস্থায়ী মর্গে এক এক করে জমা হচ্ছে হতভাগ্যদের দেহ। তারপর পুড়ে যাচ্ছে চুল্লিতে। একদিনে ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লক্ষ ছাড়িয়ে গিয়েছে যা এখনও পর্যন্ত রেকর্ড , এর ফলে তামাম ভারতবাসীর মধ্যে প্রবল আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে। কলকাতার বুকে একদিনে করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ১৪ জনের । একদিনে আক্রান্ত হয়েছেন ২৬৪৬ জন।গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেল ৩ টে থেকে ৪ টের মধ্যে পরপর ২০ জন করোনা রোগীর মৃতদেহ এসেছে ধাপায়।

পরপর শায়িত এই মৃতদেহগুলি দেখে আঁতকে উঠেছেন সৎকারকারীরাও। প্লাস্টিকে মোড়া ওই মৃতদেহগুলি সাথে তাদের দুই থেকে তিনজন আত্মীয় এসেছেন। কোন কোন মৃতদেহের সাথে কেউ আসেনি। একলা বেওয়ারিশ লাশ হিসাবে পুড়ছে সেগুলি।ভয়াবহ অবস্থা বিরাজ করছে সারা দেশ জুড়ে। ‌ প্রতিটি মানুষকে সচেতন থাকতে হবে। সকলকে মাস্ক পরিধান করতে হবে এবং অবশ্যই সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলতে হবে।