“অল্প ব্যবধানে হেরে যাওয়া আসনে পূনর্গণনার আর্জি জানিয়ে আদালতে যাবে বিজেপি।”- জানালেন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

“অল্প ব্যবধানে হেরে যাওয়া আসনে পূনর্গণনার আর্জি জানিয়ে আদালতে যাবে বিজেপি।”- জানালেন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

নিজস্ব প্রতিবেদন: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নন্দীগ্রামের রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে কলকাতা হাইকোর্টে মামলা দায়ের করেছেন। এই বিষয়ে তীব্র কটাক্ষ করেছে বিজেপির সমস্ত নেতা কর্মীরা।একুশের ভোটে সকলের পাখির চোখ ছিল নন্দীগ্রাম। এই নন্দীগ্রামের মাটিতে মুখ্যমন্ত্রী কে ১ হাজার ৯৫৬ টি ভোটে হারিয়ে দিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী।

কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী এই হার দূর্নীতিগ্রস্ত বলে প্রথম থেকেই দাবী করে এসেছেন। ভোটের সময় থেকেই নন্দীগ্রামে যথেষ্ট উত্তপ্ত পরিস্থিতি বিরাজ করছে। শুভেন্দু অধিকারী নন্দীগ্রামের মাটিতে চ্যালেঞ্জ জানিয়েছিলেন যে তিনি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে অনায়াসে হারিয়ে দেবেন। ফল ঘোষণার ৪৫ দিন পরে নন্দীগ্রামের ভোটের ফলাফলকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে হাইকোর্টে আপিল করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আরও পড়ুন-তৃণমূল জায়গা দেবে না। বিজেপিও বিরূপ। বিপাকে পড়েছেন সুনীল মণ্ডল।

তিনি ইলেকশন পিটিশন দায়ের করেছেন। গণনায় কারচুপির অভিযোগ এর পাশাপাশি নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি অভিযোগ এনেছেন মুখ্যমন্ত্রী। গতকাল শুক্রবার সকাল ১১ টায় হাইকোর্টের বিচারপতি কৌশিক চন্দ্রের এজলাসে এই মামলার শুনানি হবে এমনটাই জানা গিয়েছিলো।কিন্তু অবশেষে জানা গিয়েছে এই মামলার শুনানি পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে ।

আরও পড়ুন-“যারা ঝামেলা পাকাচ্ছেন তারা কেউই বিজেপির সক্রিয় কর্মী নন।”- দলের অভ্যন্তরে অন্তর্কলহ নিয়ে উবাচ দিলীপ ঘোষের।

আদালত ঘোষণা করেছে আগামী সপ্তাহে বৃহস্পতিবার এই মামলার শুনানি হতে চলেছে।এদিকে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছেন,”একুশের ভোটে যে সমস্ত আসনে বিজেপির অল্প ভোটের ব্যবধানে পরাজয় ঘটেছে , সেই সমস্ত আসনে বিজেপি পূনর্গণনার আবেদন জানিয়ে খুব শীঘ্রই আদালতের দ্বারস্থ হবে। কিভাবে আদালতে পিটিশন দাখিল করা হবে সেই মর্মে আমাদের আইনজীবীদের সাথে আলোচনা চলছে। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই এই আবেদন করা হবে।”