নিউজপলিটিক্সরাজ্য

শুভেন্দুর উপরে ভরসা করেই ২০২৬ এর প্রস্তুতি নিচ্ছে বিজেপি।

নিজস্ব প্রতিবেদন: একুশের ভোটে তৃণমূলের কাছে শোচনীয়ভাবে পরাজিত হয়েছে বিজেপি। বিজেপির এই পরাজয়ের পেছনে কেন্দ্রীয় হিন্দিভাষী নেতাদের আধিপত্যকে দায়ী করছেন রাজ্য বিজেপির নেতা নেত্রীরা। একুশের ভোটের প্রচার লগ্নে বাংলার মাটিতে বারবার ছুটে এসেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ সহ আরো বেশ কিছু কেন্দ্রীয় নেতা মন্ত্রীরা। কিন্তু বাংলার আপামর বাঙালি জনগণ হিন্দিভাষী নেতাদের বক্তব্য সঠিক ভাবে নিতে পারেনি বলে অভিযোগ করেছেন রাজ্যের বিজেপির শীর্ষ নেতারা।

সেই সাথে অনেকেই বলেছেন যে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে প্রধানমন্ত্রীর ‘দিদি ও দিদি’ বলে কটাক্ষ ভালোভাবে গ্রহণ করেনি বাংলার মানুষজন। তাই বিজেপির ভরাডুবি হয়েছে বাংলার মাটিতে। বিজেপির পরাজয় এর পরেই রীতিমতো ঘর ভাঙতে শুরু করে দিয়েছে বিজেপির। একুশের ভোটের আগে দলে দলে লোকজন তৃণমূল থেকে ঢুকেছিলেন বিজেপিতে।

আরও পড়ুন-“মদের দোকান খুললে সরকারের লাভ, আর স্কুল-কলেজ খুললে সরকারের খরচ”- কটাক্ষ করলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

বিজেপির হারের পর এবার বিজেপি থেকে তৃণমূলে প্রত্যাবর্তন করতে শুরু করেছেন দল বদলু নেতা কর্মীরা। গত শুক্রবার বিজেপির সাথে সমস্ত সম্পর্ক ত্যাগ করে আবার তৃণমূলে ফিরেছেন মুকুল রায়। এছাড়াও তৃণমূলের দিকে পা বাড়িয়ে রয়েছেন আরেক দলবদলু নেতা রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দলে নেওয়ার জন্য চিঠি লিখে অনুরোধ করেছেন দীপেন্দু বিশ্বাস, সোনালী গুহ ‌।

কার্যত বিজেপির সংসার এখন টলোমলো অবস্থা। কিন্তু এবার এই পরিস্থিতিতে আবার ঘুরে দাঁড়াতে চাইছে বিজেপি। বাংলায় ৭৭ টি সীট দখল করে প্রধান বিরোধী দলে আসীন হয়েছে বিজেপি। এই লড়াইয়ে এবার প্রধান মুখ হয়ে উঠতে চলেছেন শুভেন্দু অধিকারী।

আরও পড়ুন-বেআইনি অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার শুভেন্দুর ঘনিষ্ঠ আরমান ভোলা। অস্বস্তি বাড়লো শুভেন্দুর

২০২৬ এর ভোটে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে গদিচ্যুত করার জন্য এই ২০২১ থেকেই ঘুঁটি সাজাতে শুরু করে দিয়েছে বিজেপি নেতৃত্ব। সকল বিজেপি সমর্থকরাই মনে করছেন যে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে একমাত্র লড়াই করতে পারেন শুভেন্দু অধিকারী। সেই নিরিখে কয়েকদিন আগেই শুভেন্দু অধিকারী কে দিল্লি তলব করেছিলো বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। এছাড়াও কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব চাইছে বাংলা থেকে বেশ কয়েকজন বিজেপি সাংসদ কে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী পদে বসানোর।

আরও পড়ুন-আজ দিল্লি যাচ্ছেন রাজ্যপাল। রাজ্যের ভোট পরবর্তী সংঘর্ষ নিয়ে বেশ কয়েকটি বৈঠক করতে চলেছেন তিনি।

এই তালিকায় সর্বাগ্রে নাম উচ্চারিত হচ্ছে দিলীপ ঘোষ, লকেট চট্টোপাধ্যায়, নিশীথ প্রামানিক এবং সৌমিত্র খাঁ সহ আরো কয়েকজনের। শুভেন্দু অধিকারীর কাঁধে ভরসা রেখে বিজেপি নেতৃত্ব এবার আগামী ২৬ এর বিধানসভা ভোটকে পাখির চোখ রেখে লড়াই শুরু করতে চলেছে।

Related Articles

Back to top button